Tag Archives: zahintex

২৮ নভেম্বর জাহিনটেক্স ও রংপুর ডেইরির লেনদেন শুরু হচ্ছে

দুই স্টক এক্সচেঞ্জে আগামী  ২৮ নভেম্বর জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ এবং  রংপুর ডেইরি অ্যান্ড ফুড প্রোডাক্টস লিমিটেডের  লেনদেন শুরু হচ্ছে।

রংপুর ডেইরি অ্যান্ড ফুড প্রোডাক্টস কোম্পানিটি  আইপিওর মাধ্যমে ১ কোটি ৬৩ লাখ ৪১ হাজার ৪০০ শেয়ার ছেড়ে বাজার থেকে ২৯ কোটি ৪১ লাখ ৪০ হাজার  টাকা  সংগ্রহ করেছে । কোম্পানির ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের প্রতিটি শেয়ারের জন্য ৮ টাকা প্রিমিয়ামসহ মোট ১৮ টাকা নেয়া হয়েছে। কোম্পানির ২০০টি শেয়ারে এর মার্কেট লট নির্ধারণ করা হয়েছে অর্থাৎ বিনিয়োগকারীদের প্রতিটি লটের জন্য ৩ হাজার ৬০০ টাকা জমা দিতে হয়েছে  । গত ১৩ অক্টোবর  রংপুর ডেইরি অ্যান্ড ফুড প্রোডাক্টস এর লটারির  ড্র অনুষ্ঠিত হয় । এ কোম্পানিটির ইস্যু ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন অ্যালায়েন্স ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেড।

জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ ২ কোটি শেয়ার ছেড়ে পুঁজিবাজার থেকে ৫০ কোটি টাকা সংগ্রহ করছে। কোম্পানির ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের প্রতিটি শেয়ারের জন্য ১৫ টাকা প্রিমিয়ামসহ মোট ২৫ টাকা নেয়া হয়েছে। ফলে প্রতি লটের জন্য আবেদনকারীকে মোট ১২ হাজার ৫০০ টাকা জমা দিতে হয়েছে।  কোম্পানিটি প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) লটারির ড্র গত ১৯ অক্টোবর  অনুষ্ঠিত হয় । এ কোম্পানির ইস্যু ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করছে ট্রিপল এ কনসালটেন্ট অ্যান্ড  ফাইন্যান্সিয়াল এডভাইজারস  লিমিটেড।

Source: www.sharenews24.com

জাহিনটেক্সে আইপিও লটারি আজ

আবেদনকারীদের মধ্যে প্রাথমিক শেয়ার বরাদ্দের জন্য আজ বুধবার বিকেল সাড়ে তিনটায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) লটারি অনুষ্ঠিত হবে। কোম্পানির আইপিওতে নির্ধারিত শেয়ারের তুলনায় ১৭ গুণের বেশি আবেদন জমা পড়েছে বলে জানা গেছে।
জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড ২ কোটি শেয়ার ছেড়ে পুঁজিবাজার থেকে ৫০ কোটি টাকা সংগ্রহ করছে। ৫০০ শেয়ারের মার্কেট লট নির্ধারিত হওয়ায় সর্বমোট ৪০ হাজার আবেদনকারী জাহিনটেঙ্রে শেয়ার বরাদ্দ পাবেন। এরমধ্যে স্থানীয় বিনিয়োগকারীদের জন্য নির্ধারিত রয়েছে ১ কোটি ৬০ লাখ বা ৩২ হাজার লট শেয়ার। মিউচ্যুয়াল ফান্ডের জন্য সংরৰিত রয়েছে ২০ লাখ বা ৪ হাজার লট শেয়ার। এই দুই ক্যাটাগরির জন্য নির্ধারিত ৩৬ হাজার লট শেয়ারের বিপরীতে ৫ লাখ ৪৫ হাজার ৪৯০টি আবেদন জমা পড়েছে। এরসঙ্গে অর্থ জমা হয়েছে ৭৭৪ কোটি ১৩ লাখ ১২ হাজার ৫০০ টাকা।
অন্যদিকে প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জাহিনটেঙ্রে আইপিওতে ২০ লাখ বা ৪ হাজার লট শেয়ার সংরৰিত রয়েছে। এর বিপরীতে প্রবাসীরা প্রায় ১৭ হাজার বা ৫ গুণ আবেদন জমা দিয়েছেন। এই ক্যাটাগরিতে জমা হওয়া অর্থের পরিমাণ প্রায় ২১ কোটি টাকা।
কোম্পানির ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের প্রতিটি শেয়ারের জন্য ১৫ টাকা প্রিমিয়ামসহ মোট ২৫ টাকা নেয়া হয়েছে। ফলে ৫০০ শেয়ারের প্রতি লটের জন্য আবেদনপত্রের সঙ্গে ১২ হাজার ৫০০ টাকা জমা দিতে হয়েছে। আইপিওতে শেয়ার বরাদ্দের জন্য গত ১৮ থেকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত স্থানীয় বিনিয়োগকারী এবং ১ অক্টোবর পর্যন্ত প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে আবেদনপত্র জমা নেয়া হয়েছে।
জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ আইপিওর মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের জন্য গত ৩ আগস্ট সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এঙ্চেঞ্জ কমিশনে (এসইসি) অনুমোদন লাভ করে। আইপিও প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে কোম্পানির ইসু্য ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করছে এ্যালায়েন্স ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেড।
জাহিনটেঙ্ ইন্ডাস্ট্রিজের বর্তমান পরিশোধিত মূলধন ২৫ কোটি টাকা। আইপিও প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার পর পরিশোধিত মূলধন ৪৫ কোটি টাকায় উন্নীত হবে। আইপিওর মাধ্যমে সংগৃহীত অর্থের মধ্যে ব্যাংক ঋণ পরিশোধে ৪০ কোটি টাকা, চলতি মূলধন হিসেবে ৯ কোটি ১০ লাখ টাকা এবং আইপিও প্রক্রিয়া ও প্রিমিয়ামের ওপর আরোপিত কর বাবদ ৯০ লাখ টাকা ব্যয় করা হবে।
কোম্পানিটির বর্তমান শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) ৪৬ টাকা ১ পয়সা। ২০১০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত অর্ধ-বার্ষিক হিসেবে কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ছিল প্রায় ৩ টাকা ৫ পয়সা। এর ভিত্তিতে বার্ষিক হিসেবে ইপিএস ধরা হয়েছে ৬ টাকা ৯ পয়সা।
Source: The daily Janakantha, 19 October

১৯ অক্টোবর জাহিনটেক্স আইপিও লটারি

আবেদনকারীদের মধ্যে প্রাথমিক শেয়ার বরাদ্দের জন্য আগামী ১৯ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার) জাহিনটেঙ্ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) লটারি অনুষ্ঠিত হবে। কোম্পানির আইপিওতে নির্ধারিত শেয়ারের তুলনায় ১৭ গুণের বেশি আবেদন জমা পড়েছে বলে জানা গেছে।
জাহিনটেঙ্রে শেয়ার বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানান, আগামী ১৯ অক্টোবর আইপিও লটারির আয়োজনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। অনুষ্ঠানের জন্য বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র বরাদ্দ পাওয়া গেলে ওইদিনই লটারি অনুষ্ঠিত হবে।
জাহিনটেঙ্ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড ২ কোটি শেয়ার ছেড়ে পুঁজিবাজার থেকে ৫০ কোটি টাকা সংগ্রহ করছে। ৫০০ শেয়ারে মার্কেট লট নির্ধারিত হওয়ায় সর্বমোট ৪০ হাজার আবেদনকারী জাহিনটেঙ্রে শেয়ার বরাদ্দ পাবেন। এরমধ্যে স্থানীয় বিনিয়োগকারীদের জন্য নির্ধারিত রয়েছে ১ কোটি ৬০ লাখ বা ৩২ হাজার লট শেয়ার। মিউচ্যুয়াল ফান্ডের জন্য সংরক্ষিত রয়েছে ২০ লাখ বা ৪ হাজার লট শেয়ার। এই দুই ক্যাটাগরির জন্য নির্ধারিত ৩৬ হাজার লট শেয়ারের বিপরীতে ৫ লাখ ৪৫ হাজার ৪৯০টি আবেদন জমা পড়েছে। এরসঙ্গে অর্থ জমা হয়েছে ৭৭৪ কোটি ১৩ লাখ ১২ হাজার ৫০০ টাকা।
অন্যদিকে প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জাহিনটেক্সে আইপিওতে ২০ লাখ বা ৪ হাজার লট শেয়ার সংরৰিত রয়েছে। এর বিপরীতে প্রবাসীরা প্রায় ১৭ হাজার বা ৫ গুণ আবেদন জমা দিয়েছেন। এই ক্যাটাগরিতে জমা হওয়া অর্থের পরিমাণ প্রায় ২১ কোটি টাকা।
কোম্পানির ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের প্রতিটি শেয়ারের জন্য ১৫ টাকা প্রিমিয়ামসহ মোট ২৫ টাকা নেয়া হয়েছে। ফলে ৫০০ শেয়ারের প্রতি লটের জন্য আবেদনপত্রের সঙ্গে ১২ হাজার ৫০০ টাকা জমা দিতে হয়েছে। আইপিওতে শেয়ার বরাদ্দের জন্য গত ১৮ থেকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত স্থানীয় বিনিয়োগকারী এবং ১ অক্টোবর পর্যনত্ম প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে আবেদনপত্র জমা নেয়া হয়েছে।
জাহিনটেঙ্ ইন্ডাস্ট্রিজ আইপিওর মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের জন্য গত ৩ আগস্ট সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এঙ্চেঞ্জ কমিশনে (এসইসি) অনুমোদন লাভ করে। আইপিও প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে কোম্পানির ইসু্য ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করছে এ্যালায়েন্স ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেড।
জাহিনটেঙ্ ইন্ডাস্ট্রিজের বর্তমান পরিশোধিত মূলধন ২৫ কোটি টাকা। আইপিও প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার পর পরিশোধিত মূলধন ৪৫ কোটি টাকায় উন্নীত হবে। আইপিওর মাধ্যমে সংগৃহীত অর্থের মধ্যে ব্যাংক ঋণ পরিশোধে ৪০ কোটি টাকা, চলতি মূলধন হিসেবে ৯ কোটি ১০ লাখ টাকা এবং আইপিও প্রক্রিয়া ও প্রিমিয়ামের ওপর আরোপিত কর বাবদ ৯০ লাখ টাকা ব্যয় করা হবে।
কোম্পানিটির বর্তমান শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) ৪৬ টাকা ১ পয়সা। ২০১০ সালের ডিসেম্বর পর্যনত্ম অর্ধ-বার্ষিক হিসেবে কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ছিল প্রায় ৩ টাকা ৫ পয়সা। এর ভিত্তিতে বার্ষিক হিসেবে ইপিএস ধরা হয়েছে ৬ টাকা ৯ পয়সা।
Source: The Daily Janakantha, October 11, 2011

জাহিনটেক্সে আইপিওতে ৫ লাখ ৬২ হাজার আবেদন

প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের শেয়ার বরাদ্দ পাওয়ার জন্য বিনিয়োগকারীরা মোট ৫ লাখ ৬১ হাজার ৯৬০টি আবেদন করেছেন। এসব আবেদনপত্রের সঙ্গে ৭৯৪ কোটি ৮৮ লাখ ১২ হাজার ৫০০ টাকা জমা পড়েছে_ যা কোম্পানির আইপিও মূল্যের চেয়ে প্রায় ১৬ গুণ বেশি। কোম্পানির পৰ থেকে প্রাথমিকভাবে এই পরিসংখ্যান দেয়া হয়েছে।
জাহিনটেঙ্ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড ২ কোটি শেয়ার ছেড়ে পুঁজিবাজার থেকে ৫০ কোটি টাকা সংগ্রহ করছে। কোম্পানির ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের প্রতিটি শেয়ারের জন্য ১৫ টাকা প্রিমিয়ামসহ মোট ২৫ টাকা নেয়া হচ্ছে। ফলে ৫০০ শেয়ারের প্রতি লটের জন্য আবেদনপত্রের সঙ্গে ১২ হাজার ৫০০ টাকা জমা দিতে হয়েছে। আইপিওতে শেয়ার বরাদ্দের জন্য গত ১৮ থেকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যনত্ম স্থানীয় বিনিয়োগকারী এবং ১ অক্টোবর পর্যন্ত প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে আবেদনপত্র জমা নেয়া হয়েছে।
৫০০ শেয়ারে মার্কেট লট নির্ধারিত হওয়ায় সর্বমোট ৪০ হাজার আবেদনকারী জাহিনটেঙ্রে শেয়ার বরাদ্দ পাবেন। এরমধ্যে স্থানীয় বিনিয়োগকারীদের জন্য নির্ধারিত রয়েছে ১ কোটি ৬০ লাখ বা ৩২ হাজার লট শেয়ার। মিউচু্যয়াল ফান্ডের জন্য সংরৰিত রয়েছে ২০ লাখ বা ৪ হাজার লট শেয়ার। এই দুই ক্যাটাগরির জন্য নির্ধারিত ৩৬ হাজার লট শেয়ারের বিপরীতে ৫ লাখ ৪৫ হাজার ৪৯০টি বা ১৫.১৫ গুণ আবেদন জমা পড়েছে। এরসঙ্গে অর্থ জমা হয়েছে ৭৭৪ কোটি ১৩ লাখ ১২ হাজার ৫০০ টাকা।
অন্যদিকে প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জাহিনটেঙ্রে আইপিওতে ২০ লাখ বা ৪ হাজার লট শেয়ার সংরৰিত রয়েছে। এর বিপরীতে প্রবাসীরা মোট ১৬ হাজার ৫০০টি বা ৪.১২ গুণ আবেদন জমা দিয়েছেন। এই ক্যাটাগরিতে জমা হওয়া অর্থের পরিমাণ ২০ কোটি ৭৫ লাখ টাকা।
জাহিনটেঙ্ ইন্ডাস্ট্রিজ আইপিওর মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের জন্য গত ৩ আগস্ট সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এঙ্চেঞ্জ কমিশনে (এসইসি) অনুমোদন লাভ করে। আইপিও প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে কোম্পানির ইসু্য ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করছে এ্যালায়েন্স ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেড।
জাহিনটেঙ্ ইন্ডাস্ট্রিজের বর্তমান পরিশোধিত মূলধন ২৫ কোটি টাকা। আইপিও প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার পর পরিশোধিত মূলধন ৪৫ কোটি টাকায় উন্নীত হবে। আইপিওর মাধ্যমে সংগৃহীত অর্থের মধ্যে ব্যাংক ঋণ পরিশোধে ৪০ কোটি টাকা, চলতি মূলধন হিসেবে ৯ কোটি ১০ লাখ টাকা এবং আইপিও প্রক্রিয়া ও প্রিমিয়ামের ওপর আরোপিত কর বাবদ ৯০ লাখ টাকা ব্যয় করা হবে।
Source: The Daily Janakantha, October 05, 2011