Tag Archives: Unique Hotel and Resorts

ইউনিক হোটেলের আইপিও লটারির ড্র অনুষ্ঠিত

প্রাথমিক গণপ্রস্তাব প্রক্রিয়া শেষে আজ মঙ্গলবার ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টস লিমিটেডের (ওয়েস্টিন হোটেল) আইপিও লটারির ড্র অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আবেদনকারীদের মধ্যে শেয়ার বরাদ্দের জন্য আজ সকাল সাড়ে ১০টায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে লটারির ড্র অনুষ্ঠিত হয়। লটারির ফলাফল ডিএসই, সিএসই, সংশ্লিষ্ট কোম্পানি এবং ইস্যু ব্যবস্থাপক প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। তবে কোম্পানির সাধারণ বিনিয়োগকারী ও এনআরবি কোটায় আন্ডারসাবসক্রাইব হওয়ায় সকল আবেদনকারী শেয়ার পাবেন। শুধুমাত্র মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওভারসাবসক্রাইব হওয়ায় লটারী হয়েছে।

আইপিওতে শেয়ার বরাদ্দের জন্য স্থানীয় অধিবাসীদের কাছ থেকে গত ১৫ এপ্রিল থেকে ইউনিক হোটেলের আবেদন গ্রহণ শুরু হয়ে চলে ১৯ এপ্রিল পর্যন্ত এবং প্রবাসীদের জন্য এ সুযোগ ছিল ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত। প্রতিটি শেয়ারে ১০ টাকা ফেস ভ্যালুর ৬৫ টাকা প্রিমিয়াম নেয়া হয়েছে। ফলে প্রতি লটের জন্য বিনিয়োগকারীদের দিতে হয়েছে ৭ হাজার ৫০০ টাকা। কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ২ কোটি ৬০ লাখ শেয়ার ছেড়ে বাজার থেকে মোট ১৯৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে।

জানা যায়, ইউনিক হোটেলের আইপিওতে স্থানীয় কোটায় বরাদ্দের চেয়ে কম আবেদন (আন্ডার সাবস্ক্রাইব) জমা পড়ে। তবে মিউচ্যুয়াল ফান্ড কোটায় বরাদ্দের চেয়ে দ্বিগুণ আবেদন জমা পড়ে। এ কোম্পানির আইপিও আবেদনে মোট ২ লাখ ৯ হাজার ৩৫০টি আবেদন জমা পড়ে।
পরিসংখ্যান অনুযায়ী মিউচ্যুয়াল ফান্ড ও সাধারণ বিনিয়োগকারী মিলিয়ে মোট আবেদন জমা পড়ে ২ লাখ ৫ হাজার ৩০৭টি। আর প্রবাসী বিনিয়োগকারীরা মোট ৪ হাজার ৪৩টি আবেদন জমা দিয়েছেন।
আইপিও পূর্ব এ কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ছিল ২৩০ কোটি টাকা এবং আইপিও পরবর্তী মূলধন হবে ২৫৬ কোটি টাকা। সর্বশেষ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১১ পর্যন্ত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী এ কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে (ইপিএস) ৪.৩০ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে (এনএভি) ১০০.৩৮ টাকা। এর ইস্যু ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করছে ব্রাক ইপিএল ইনভেস্টমেন্টস লিমিটেড এবং অডিটে রয়েছে এস এফ আহমেদ অ্যান্ড কোম্পানি।

সূত্র: শেয়ার নিউজ টুয়েন্টিফোর, ১৫ মে, ২০১২

ইউনিক হোটেলের আইপিওতে দ্বিগুণ আবেদন

ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টস লিমিটেডের (ওয়েস্টিন হোটেল) প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) দুই লাখ ৯ হাজার ৩৫০টি আবেদন জমা পড়েছে। কম্পানির ১৯৫ কোটি টাকার শেয়ারের বিপরীতে আগ্রহী বিনিয়োগকারীরা ৩৮৯ কোটি ৩১ লাখ ৮৪ হাজার ৭৫০ টাকার আবেদন জমা দিয়েছেন। কম্পানির পক্ষ থেকে আইপিও আবেদনের এই প্রাথমিক পরিসংখ্যান দেওয়া হয়েছে। কম্পানির তথ্যানুযায়ী, মিউচ্যুয়াল ফান্ড ও সাধারণ বিনিয়োগকারী মিলিয়ে মোট আবেদন জমা পড়েছে দুই লাখ পাঁচ হাজার ৩০৭টি আবেদন। আর প্রবাসী বাংলাদেশিরা চার হাজার ৪৩টি আবেদন জমা দিয়েছেন।
তথ্যমতে, ১০০টি শেয়ারে মার্কেট লট নির্ধারিত হওয়ায় সর্বমোট দুই লাখ ৬০ হাজার লট শেয়ার সাধারণ আবেদনকারীদের মধ্যে বরাদ্দ দেওয়া হবে। সেই হিসাবে নির্ধারিত লটের তুলনায় ইউনিক হোটেলের আইপিওতে কম আবেদন জমা পড়েছে। তবে মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলো বড় অঙ্কের শেয়ার পাওয়ার জন্য আবেদন করায় আর্থিক হিসাবে প্রায় দ্বিগুণ আবেদন জমা হয়েছে। এ কারণে মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলোয় শেয়ার বরাদ্দের জন্য শিগ্গিরই লটারির আয়োজন করা হবে।
পুঁজিবাজারে দুই কোটি ৬০ লাখ শেয়ার ছেড়ে কম্পানিটি বাজার থেকে মোট ১৯৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করছে। আইপিওর মাধ্যমে বিক্রির জন্য কম্পানির ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে শেয়ারের বিপরীতে ৬৫ টাকা প্রিমিয়ামসহ মোট ৭৫ টাকা মূল্য অনুমোদন করেছে এসইসি। কম্পানির ১০০টি শেয়ারে একটি মার্কেট লট নির্ধারণ করা হয়েছে। ফলে আইপিও আবেদনের সঙ্গে বিনিয়োগকারীদের সাড়ে সাত হাজার টাকা জমা দিতে হয়েছে।
আইপিওতে শেয়ার বরাদ্দের জন্য গত ১৫ এপ্রিল থেকে ১৯ এপ্রিল পর্যন্ত স্থানীয় বিনিয়োগকারী এবং ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে আবেদনপত্র জমা নেওয়া হয়।

সূত্র: কালের কণ্ঠ, ৭ মে ২০১২

Unique Hotel IPO prospect gets nod

The Securities and Exchange Commission (SEC) has approved the Initial Public Offering (IPO) prospectus of Unique Hotel and Resorts to collect Tk 1.95 billion.

The commission took the decision at a meeting held Tuesday with its boss Professor M Khairul Hossain in the chair.

The company will offload 26 million ordinary shares of Tk 10 each at an offer price of Tk 75, including premium of Tk 65. Net asset value per share of the company is Tk 100.38 while earning per share (EPS) is Tk 5.18 as of financial statement of 2010. it also stated that the EPS per share of the company in 2011 is Tk 4.30.

The IPO proceeds will be used to build three new hotels, pay back bank loans and expenses for the IPO, SEC said.

Source: Daily Sun, February 15, 2012

ইউনিক হোটেলের আইপিও অনুমোদন

ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টস লিমিটেডকে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির অনুমতি দিয়েছে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি)।

২ কোটি ৬০ লাখ শেয়ার ছেড়ে পুঁজিবাজার থেকে ১৯৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে কোম্পানিটি, যাদের মালিকানাধীন অন্যতম প্রতিষ্ঠান হলো ঢাকার পাঁচ তারকা হোটেল ‘ওয়েস্টিন’।

মঙ্গলবার কমিশন সভায় এ অনুমোদন দেওয়া হয় বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে এসইসি।

এতে বলা হয়, ইউনিক হোটেল পুঁজিবাজার থেকে ১৯৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করে তিনটি নতুন হোটেল নির্মাণ করবে। পাশাপাশি এই অর্থ থেকেই ব্যাংক ঋণ ও আইপিওর খরচ মেটাবে প্রতিষ্ঠানটি।

ইউনিক হোটেলের ১০ টাকার প্রতিটি শেয়ারে ৬৫ টাকা প্রিমিয়াম ধরা হয়েছে। অর্থাৎ, এ কোম্পানির প্রতিটি শেয়ারের ইস্যুমূল্য হবে ৭৫ টাকা।

২০১০ সালের আর্থিক বিবরণী অনুযায়ী, এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদ ১০০ টাকা ৩৮ পয়সা। ২০১১ সালের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রতিটি শেয়ারে তাদের আয় হয়েছে ৪ টাকা ৩০ পয়সা। ইউনিক হোটেলের ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে ব্র্যাক ইপিএল ইনভেস্টমেন্ট।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, লংকা বাংলা সিকিউরিটিজ ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের একটি সদস্য প্রতিষ্ঠান হওয়ায় তাদের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের আবেদন এসইসি বিবেচনা করেনি।

এদিকে মঙ্গলবার কমিশন সভায় কর্পোরেট গভর্নেন্স গাইড লাইন সংশোধন সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়েছে।

কোম্পানিগুলো প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ করে কোন কোন খাতে ব্যবহার করতে পারবে, সে বিষয়ে নীতিমালা প্রণয়নের জন্য দুই সদস্যের কমিটিও করা হয়েছে।

এছাড়া ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের ২০১২ সালের পরিচালনা পর্ষদের নির্বাচনে মনোনীত ১০ জন সদস্যের বিষয়ে এই সভায় ‘অনাপত্তি’ দিয়েছে কমিশন।

সূত্র: বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম, ঢাকা, ফেব্রুয়ারি ১৪।