নির্দেশক মূল্য নির্ধারণে জিএমজি এয়ারলাইন্সের রোড শো অনুষ্ঠিত

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে নির্দেশক মূল্য নির্ধারণের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে প্রস্তাব আহ্বান করেছে জিএমজি এয়ারলাইন্স লিমিটেড। গত বুধবার সন্ধ্যায় রাজধানীর হোটেল শেরাটনে আনুষ্ঠানিক রোড শোর মাধ্যমে শেয়ারের মূল্য নির্ধারণের কার্যক্রম শুরম্ন করেছে কোম্পানিটি। শেয়ারের চূড়ান্ত মূল্য নির্ধারণের পর প্রতিষ্ঠানটি পুঁজিবাজারে মোট ৬ কোটি শেয়ার ছাড়বে। পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির জন্য জিএমজি এয়ারলাইন্সের ইসু্য ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করছে জনতা ক্যাপিটাল এ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড (জেসিআইএল)।
রোড শো অনুষ্ঠানে কোম্পানির পৰ থেকে সম্ভাব্য নির্দেশক মূল্য ১৫০ টাকা প্রস্তাব করা হয়। ২০১০ সালের বার্ষিক হিসাবে কোম্পাানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১০ টাকা ৩১ পয়সা। আর শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ২৫ টাকা ৫৩ পয়সা।
অনুষ্ঠানে জানানো হয়, এয়ারক্রাফট সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের অর্থ পরিশোধ, হ্যাঙ্গার ও সংশিস্নষ্ট যন্ত্রপাতি নির্মাণ, ঋণ পরিশোধ এবং চলতি মূলধন বাড়াতে মূলধন সংগ্রহের জন্য জিএমজি এয়ারলাইন্স পুঁজিবাজারে আসার সিদ্ধানত্ম নিয়েছে। বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে মূল্য নির্ধারণের পর কোম্পানিটি প্রাথমিক গণপ্রসত্মাবের (আইপিও) মাধ্যমে দুই স্টক এঙ্চেঞ্জে তালিকাভুক্ত হবে। বর্তমানে এই কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ২৪৬ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। আইপিওর মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের পর পরিশোধিত মূলধন ৩০৬ কোটি ৬৬ লাখ টাকায় দাঁড়াবে।
রোড শোতে আরও জানানো হয়, পুঁজিবাজারে বিক্রির জন্য নির্ধারিত ৬ কোটি শেয়ারের মধ্যে ১ কোটি ২০ লাখ (২০ শতাংশ) শেয়ার দর প্রসত্মাব (বিডিং) প্রক্রিয়ার মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের বরাদ্দ দেয়া হবে। এছাড়া আইপিওর মাধ্যমে ৬০ লাখ (১০ শতাংশ) শেয়ার মিউচু্যয়াল ফান্ড, ৬০ লাখ (১০ শতাংশ) শেয়ার প্রবাসী বাংলাদেশী এবং বাকি ৩ কোটি ৬০ লাখ (৬০ শতাংশ) শেয়ার সাধারণ বিনিয়োগকারীদের মধ্যে বণ্টন করা হবে। নির্দেশক মূল্য নির্ধারণের পর এসইসির অনুমোদন পেলে স্বল্প সময়ের মধ্যেই প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে চূড়ানত্ম দর প্রসত্মাব আহ্বান করা হবে।
রোড শো অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম স্টক এঙ্চেঞ্জের (সিএসই) সভাপতি ফখরউদ্দীন আলী আহমেদ, বেঙ্মিকো গ্রম্নপের ভাইস চেয়ারম্যান সালমান এফ রহমান, জিএমজি এয়ারলাইন্স লিমিটেডের চেয়ারম্যান আহমেদ শায়ান এফ রহমান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাহাব সাত্তার, জেসিআইএলের প্রধান নির্বাহী জাহাঙ্গীর মিয়া বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে ঢাকা স্টক এঙ্চেঞ্জ, মার্চেন্ট ব্যাংকার্স এ্যাসোসিয়েশনসহ (বিএমবিএ) বিভিন্ন ব্যাংক, ইন্সু্যরেন্স কোম্পানির প্রতিনিধি, শেয়ার ডিলার, মার্চেন্ট ব্যাংকার এবং নিবন্ধিত আগ্রহী প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা উপস্থিত ছিলেন।
এই অনুষ্ঠানে উপস্থাপিত সামগ্রিক তথ্যের ভিত্তিতে আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে আগ্রহী প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা লিখিতভাবে কোম্পানির শেয়ারের মূল্য নির্দেশ করতে পারবেন। এৰেত্রে প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী এবং অর্থনৈতিক বিশেস্নষকের যৌথ স্বাৰরে কোম্পানির ভবিষ্যত সম্ভাবনা উলেস্নখসহ নির্দেশক মূল্য প্রসত্মাব করতে হবে। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে প্রাপ্ত প্রসত্মাবের ভিত্তিতে ইসু্য ব্যবস্থাপকের সঙ্গে পরামর্শ করে কোম্পানির প্রসপেক্টাসে শেয়ারের নির্দেশক মূল্য উলেস্নখ করা হবে। এই নির্দেশক মূল্য কোনভাবেই প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে প্রাপ্ত সকল প্রস্তাবের গড়ের চেয়ে বেশি হতে পারবে না।

Source: The daily janakantha, 14 Jan, 2011