পুঁজিবাজার থেকে ৪ হাজার কোটি টাকা তুলতে চায় ২৮ কোম্পানি

আবারও উচ্চহারে প্রিমিয়াম প্রস্তাব
উচ্চহারে প্রিমিয়াম নির্ধারণ করে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে ৪ হাজার ২৬ কোটি তুলতে চায় ২৮ কোম্পানি। এর আগেও বাজার থেকে অতি উচ্চহারে প্রিমিয়াম নিয়ে বিনিয়োগকারীর সবর্স্ব কেড়ে নিয়েছে বাজারে তালিকাভুক্ত বেশ কিছু কোম্পানি। বাজারে শেয়ার চাহিদাকে পুঁজি করে নিয়ন্ত্রক সংস্থা সিকিউরিটিজ এ্যান্ড একচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) উদাসীনতায় কোম্পানিগুলো এই সুবিধাকে কাজে লাগিয়েছে। বিনিয়োগকারীরাও ভাল-মন্দ বাছবিচার না করে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের মাধ্যমে শেয়ার কিনে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এসব কোম্পানির শেয়ারের দর অভিহিত মূল্যের নিচে নেমে এসেছে।
আগের ধারাবাহিকতায় এবার উদ্যোক্তা পরিচালকদের শেয়ার ধারণ সংক্রান্ত এসইসির প্রজ্ঞাপন মেনে পরিচালকরা ২ শতাংশ শেয়ার ব্যক্তিগতভাবে সংরক্ষণ করলে বাজারে শেয়ার সঙ্কট বাড়তে পারে। সার্বিকভাবে কোম্পানিগুলোর প্রায় ৩০ শতাংশ শেয়ার ব্লক হয়ে যাবে। এর সুযোগ নিতে পারে কোম্পানিগুলো এবং উদ্যোক্তা পরিচালকরা। অতীতের মতো আবারও তাঁরা উচ্চহারে প্রিমিয়াম প্রস্তাব করে বাজার থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার আশঙ্কা উড়িয়ে দেয়া যায় না।
সম্প্রতি নিয়ন্ত্রক সংস্থা ইউনিক হোটেল এ্যান্ড রিসোর্ট এবং আনন্দ শিপইয়ার্ডকে উচ্চ হারে প্রিমিয়াম ধরে বাজার থেকে টাকা উত্তোলনের অনুমতি দিয়েছে। ইউনিক হোটেল এ্যান্ড রিসোর্টের প্রতিটি শেয়ারের প্রিমিয়াম নির্ধারণ করা হয়েছে ৬৫ টাকা এবং আনন্দ শিপইয়ার্ডের ক্ষেত্রে তা নির্ধারিত হয়েছে ৫৮ টাকা। এর আগেও গত কয়েক বছরে বাজারে শেয়ার সঙ্কটের সময়ে সরকারী ও বেসরকারী কোম্পানিগুলো অতিরিক্ত প্রিমিয়াম ধরে বাজার থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা তুলে নেয়। পরে বাজার ধসের সময়ে সাধারণ ও ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীরা এতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। উচ্চহারে এমন প্রিমিয়াম ধরার ফলে আগামীতেও এমন সঙ্কট সৃষ্টির আশঙ্কা উড়িয়ে দেয়া যায় না।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, পুনরায় আইপিও’র আবেদন করা ডেল্টা স্পিনার্স লিমিটেড নামের কোম্পানির প্রতিটি শেয়ারের প্রিমিয়াম প্রস্তাব করা হয়েছে ২০০ টাকা করে। এছাড়া কোম্পানির প্রতিটি শেয়ারের অভিহিত মূল্য ৩০ টাকা ধরা হয়েছে। কোম্পানি ৩০ লাখ শেয়ার ছেড়ে মোট ৯০ কোটি টাকা তুলতে চায়। আর এ ক্ষেত্রে ৬০ কোটি টাকার প্রিমিয়াম তুলতে চায়। এরপরে নাভানা রিয়েল এস্টেট নামের কোম্পানি ৩ কোটি শেয়ার ছেড়ে শুধু প্রিমিয়ামের মাধ্যমে ৩৩০ কোটি টাকা তুলতে চায়। কোম্পানির প্রিমিয়াম প্রস্তাব করা হয়েছে ১১০ টাকা। এনার্জি প্রিমা লিমিটেড নামের কোম্পানির প্রতিটি শেয়ারের প্রিমিয়াম ৫৬ টাকা। কোম্পানি বাজার থেকে ১৪৪ কোটি টাকা তুলবে। ঢাকা রিজেন্সি হোটেল এ্যান্ড রিসোর্ট লিমিটেড নামের কোম্পানি ৪০ টাকা প্রিমিয়াম প্রস্তাব করে বাজার থেকে ৮০ কোটি টাকা তুলতে চায়। আরগো ডেনিমস লিমিটেড নামের কোম্পানির প্রতিটি শেয়ারের প্রিমিয়াম ৭০ টাকা। কোম্পানি বাজার থেকে ২১০ কোটি টাকা তুলতে চায়। শাহ্জীবাজার পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড নামের কোম্পানি ৬০ টাকা প্রিমিয়াম প্রস্তাবে বাজার থেকে ২২৫ কোটি টাকা তুলতে চায়। গ্লোবাল হেভি কেমিক্যালস লিমিটেড নামের কোম্পানি ২০ টাকা প্রিমিয়াম ধরে বাজার থেকে ২৪ কোটি টাকা তোলার আবেদন জানিয়েছে।
ফার ফাস্ট নিটিং এ্যান্ড ডায়িং লিমিটেড নামের কোম্পানির প্রিমিয়াম ৪০ টাকা। কোম্পানি বাজার থেকে ১২০ কোটি টাকা তুলতে চায়। কেয়া কটন মিলস লিমিটেড নামের কোম্পানি বাজার থেকে ৩০ টাকা প্রিমিয়াম ধরে ১৫০ কোটি টাকা তুলতে চায়। জেনারেল নেক্সট ফ্যাশন নামের কোম্পানি বাজার থেকে ২৫ টাকা প্রিমিয়াম ধরে ৭৫ কোটি টাকা তোলার আবেদন করেছে। মতিন স্পিন মিলস লিমিটেড ৫৫ টাকা প্রিমিয়াম ধরে ১৫১ কোটি ২৫ লাখ টাকা তুলবে। এপোলো ইস্পাত কমপ্লেক্স ৬০ টাকা প্রিমিয়াম ধরে বাজার থেকে ৩৪২.৯০ কোটি টাকা তুলবে। কেয়া স্পিনিং মিলস লিমিটেড প্রতিটি শেয়ারের প্রিমিয়াম ৩০ টাকা। কোম্পানি বাজার থেকে প্রিমিয়াম বাবদ ১২০ কোটি টাকা তুলতে চায়। সাইফ পাওয়ার টেক লিমিটেড নামের কোম্পানি বাজার থেকে ২৫ টাকার প্রিমিয়াম ধরে ৩০ কোটি টাকা তুলতে চায়। ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড লিমিটেড বাজার থেকে ৬০ টাকা প্রিমিয়াম ধরে ২৭০ কোটি টাকা তুলতে চায়। ইফাদ অটোস লিমিটেড বাজার থেকে প্রিমিয়াম বাবদ ২৭০ কোটি টাকা তোলার আবেদন এসইসিতে জমা দিয়েছে। এছাড়া সাউথ এশিয়া ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড বাজার থেকে ২৫ টাকা প্রিমিয়াম ধরে ২২ কোটি ৫০ লাখ টাকা তুলতে চায়। এমএল ডায়িং লিমিটেড নামের আরও একটি কোম্পানি বাজার থেকে ২০ টাকা প্রিমিয়াম ধরে ৬০ কোটি টাকা তুলতে চায়। এ ড্রাগন সোয়েটার এ্যান্ড স্পিনিং লিমিটেড নামের কোম্পানি ২০ টাকা প্রিমিয়াম প্রস্তাব করেছে। কোম্পানি বাজার থেকে ৬০ কোটি টাকা তুলতে চায়। এছাড়া ওরিয়ন ফার্মা ৩৬০ কোটি, ইনাভো টেক্সটাইল মিলস লিমিটেড ১৩৩ কোটি টাকা, প্রিমিয়ার সিমেন্ট ৪৪ কোটি ৪ লাখ টাকা, হামিদ ফেব্রিক্স লিমিটেড ৭৮ কোটি, প্যারামাউন্ট সিমেন্ট ১০৫ কোটি, বেঙ্গল এন্ডোর থার্মো প্লাস্টিক লিমিটেড ৬০ কোটি, গোল্ডেন হারভেস্ট এ্যান্ড এগ্রোফার্মা লিমিটেড ১৫০ কোটি, এমপি স্পিনিং মিলস লিমিটেড ৯৮ কোটি এবং আনন্দ শিপ ইয়ার্ড এ্যান্ড শিপ ওয়েজড লিমিটেড ৬৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা প্রিমিয়াম প্রস্তাব করেছে।
এর আগে বাজারে ধসে গঠিত তদন্ত কমিটির সুপারিশে উচ্চহারে প্রিমিয়াম প্রস্তাব করে আইপিও’র মাধ্যমে শেয়ার ছাড়ার সমালোচনা করা হয়। এতে বলা হয়, কোন বাছবিচার না করেই ঢালাওভাবে উচ্চ প্রিমিয়াম প্রস্তাব করে কোম্পানিগুলোকে টাকা উত্তোলনের সুযোগ দেয়া উচিত হয়নি। এতে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাই বাজারের স্বার্থে এসব কোম্পানিকে কম প্রিমিয়াম প্রস্তাব করে শেয়ার ছাড়া উচিত।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক আবু আহমেদ বলেন, বাজারে অতিমূল্যায়িত হয়ে শেয়ার তালিকাভুক্ত হলে বাজারে প্রভাব পড়ে। এতে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই নিয়ন্ত্রক সংস্থাসহ সংশ্লিষ্টদের এই বিষয়ে গুরুত্ব দেয়া উচিত।
ডিএসইর প্রেসিডেন্ট রকিবুর রহমান বলেন, আইপিওতে আসার আগে কোম্পানিগুলো আর্থিক প্রতিবেদন জমা দেয়। মূলত সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি) প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে কোন কোম্পানি কিভাবে কত দরে আসবে তা নির্ধারণ করে। কিন্তু ফারুক আহমেদ সিদ্দিকী এসইসির চেয়ারম্যান থাকাকালীন কোম্পানির আইপিও প্রতিবেদন নিয়ে ডিএসইর পর্যালোচনা ও সুপারিশ সংযুক্ত রাখার নির্দেশনা ছিল। তিনি আরও বলেন, আর্থিক প্রতিবেদনের স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে দেশের শীর্ষস্থানীয় হিসাব নিরীক্ষক প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি এবং বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে প্যানেল গঠন করা হয়েছে। প্যানেলের সঙ্গে ডিএসইর বোর্ডের কোন সংশ্লিষ্টতা থাকবে না। এর ফলে শেয়ারবাজারে কোম্পানিগুলোর তালিকাভুক্তি এবং প্রিমিয়াম নিয়ে অভিযোগের অবসান হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।
চট্টগ্রাম স্টক একচেঞ্জের সাবেক প্রেসিডেন্ট ফখরুদ্দিন আলী আহমদ বলেন, বাজারে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে। এজন্য রিপিট আইপিও, প্রেফারেন্স শেয়ার, বুকবিল্ডিং, ঋণকে ইক্যুইটিতে রূপান্তরের কার্যক্রমগুলো নিরুৎসাহিত করা হবে। তিনি আরও বলেন, আগে দেখতে হবে বাজারে তালিকাভুক্তির সময়েই শেয়ার অতিমূল্যায়িত হয় কিনা। কারণ কোন শেয়ার বাজারে আসার আগেই অতিমূল্যায়িত হলে বাজারে প্রভাব পড়বেই। অতীতেও এটি ঘটেছে।

সূত্র: দৈনিক জনকণ্ঠ, ১৫ মে ২০১২

This entry was posted in News and tagged on by .

About bdipo Team

Started our journey in Jan 2009. A simple idea is getting bigger. A baby born and learning to walk, talk, imitate and express. This page is dedicated to that eternal urge of expression. The humane and emotional side of bdipo.