Monthly Archives: July 2018

আইন মেনেই সিলভা ফার্মার আইপিও অনুমোদন: বিএসইসি

নিজস্ব প্রতিবেদক: সিলভা ফার্মার আইপিও নিয়ে আইডিএলসির আপত্তি নিয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছে শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

গতকাল কমিশনের ওয়েবসাইটে এর নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সাইফুর রহমান স্বাক্ষরিত ব্যাখ্যায় বলা হয়, সংশ্নিষ্ট আইন ও বিধিমালা পরিপালন করে যথাযথ প্রক্রিয়ায় সিলভা ফার্মার আইপিও অনুমোদন দেওয়া হয়। এতে বলা হয়, সিলভা ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের আইপিও সাবসক্রিপশন বাতিলের বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে আইডিএলসি ফাইন্যান্স গত ২৩ জুলাই একটি চিঠি দেয় বিএসইসিতে। পরদিন চিঠিটি সংস্থার ক্যাপিটাল ইস্যু বিভাগে পাঠানো হলে সঙ্গে সঙ্গে আইডিএলসির এমডির সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। ওই দিনই আইডিএলসির পক্ষ থেকে দেওয়া চিঠির স্বাক্ষরকারী ডিএমডি এম জামাল উদ্দিন কমিশনে উপস্থিত হন এবং বিস্তারিত আলোচনা করেন। এম জামাল উদ্দিন স্বীকার করেন, সিলভা ফার্মাসিউটিক্যালসের কোনো পরিচালক ঋণখেলাপি নন বিধায় এই আইপিও অনুমোদন বিধিসম্মত হয়েছে।

সিলভা ফার্মার আইপিও আবেদন শুরু রোববার

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুঁজিবাজার থেকে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহে আবেদনের তারিখ নির্ধারণ করেছে সিলভা ফার্মাসিউটিক্যালস। আগামী রোববার (২৯ জুলাই) কোম্পানিটির আইপিও আবেদন শুরু হবে। চলবে ৫ আগস্ট পর্যন্ত। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এর আগে ১১ জুন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) কোম্পানিটির আইপিও অনুমোদন দেয়।

প্রসপেক্টাস সূত্রে জানা যায়, সিলভা ফার্মাসিউটিক্যালসকে পুঁজিবাজার থেকে ৩০ কোটি টাকা উত্তোলনের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। কোম্পানিটি অভিহিত মূল্য ১০ টাকা করে ৩ কোটি সাধারণ শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে এই টাকা সংগ্রহ করবে।

উত্তোলিত টাকায় কোম্পানিটি যন্ত্রপাতি ও কলকব্জা ক্রয়, কারখানার ভবন নির্মাণ, ঋণ পরিশোধ এবং আইপিওতে ব্যবহার করবে।

কোম্পানিটির ২০১৬-১৭ অর্থবছরে শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ১.০৩ টাকা। আর ২০১৭ সালের ৩০ জুন পুনঃমূল্যায়ন ছাড়া শেয়ার প্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৬.৪৮ টাকায়।

উল্লেখ্য, কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে প্রাইম ফাইন্যান্স ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড, ইম্পেরিয়াল ক্যাপিটাল লিমিটেড ও এসবিএল ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড।

শেয়ারনিউজ; ২৮ জুলাই ২০১৮

এমএল ডাইংয়ের আইপিও লটারির তারিখ নির্ধারণ

নিজস্ব প্রতিবেদক : পুঁজিবাজার থেকে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে অর্থ উত্তোলনের অনুমোদন পাওয়া এমএল ডাইং লিমিটেডের আইপিও লটারির তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। আগামী ৯ আগষ্ট সকাল সাড়ে ১০টায় ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্সটিটিউট, আইইবি মিলনায়তন, রমনা, ঢাকায় এ কোম্পানির আইপিও লটারি অনুষ্ঠিত হবে।

এর আগে গত ৮ জুলাই থেকে ১৯ জুলাই পর্যন্ত কোম্পানির আইপিও সাবস্ক্রিপশন অনুষ্ঠিত হয়। গত ১৫ মে এমএল ডাইংয়ের ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে ২ কোটি সাধারণ শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে ২০ কোটি টাকা তোলার অনুমোদন দেয় কমিশন।

উত্তোলিত টাকা দিয়ে কোম্পানিটি যন্ত্রপাতি ও কলকব্জা ক্রয় এবং স্থাপনের পাশাপাশি আইপিওতে খরচ করবে।

৩০ জুন ২০১৭ সমাপ্ত হিসাব বছরে পুনর্মূল্যায়ন ছাড়া শেয়ার প্রতি নেট অ্যাসেট ভ্যালু হয়েছে ২৩.৭১ টাকা। আর শেয়ার প্রতি ভারিত গড় হারে আয় হয়েছে ২.৩৫ টাকা।

কোম্পানিটির বর্তমান পরিশোধিত মূলধন ১৪০ কোটি ৪১ লাখ টাকা। আর আইপিও এর মাধ্যমে কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ২ কোটি শেয়ার ছেড়ে ২০ কোটি টাকা সংগ্রহ করার অনুমোদন পেয়েছে। এ টাকা কোম্পানিটি যন্ত্রপাতি ও ইক্যুইপমেন্ট ক্রয়ে ১৭ কোটি ৮৩ লাখ টাকা এবং আইপিও খরচে বাকী টাকা ব্যয় করবে। আইপিও ফান্ড পাওয়ার ২১ মাসের মধ্যে এসব কার্যক্রম সম্পন্ন করবে কোম্পানিটি।

কোম্পানিটির ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে কাজ করছে এনবিএল ক্যাপিটাল এন্ড ইক্যুইটি ম্যানেজমেন্ট লি: এবং রূপালী ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

শেয়ারনিউজ;২৩ জুলাই ২০১৮

ভিএফএস থ্রেড ডাইংয়ের আইপিও লটারির ফল আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক : ভিএফএস থ্রেড ডাইং লিমিটেডের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) লটারি আজ, বৃহস্পতিবার (১৯ জুলাই) অনুষ্ঠিত হবে। সকাল সাড়ে ১০টায় রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্সটিটিউটে এ ড্র অনুষ্ঠিত হবে। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, ভিএফএস থ্রেড ডাইং লিমিটেডের আইপিওতে ৪৫.৫৭ গুণ আবেদন জমা পড়েছে। গত ২৪ জুন থেকে কোম্পানিটির আইপিও আবেদন শুরু হয় যা চলে ২ জুলাই পর্যন্ত।

কোম্পানিটির শেয়ার কেনার জন্য মোট ১১ কোটি শেয়ারের জন্য ৫০১ কোটি ২৭ লাখ টাকার আবেদন পড়েছে।

এর আগে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৬৩৮তম কমিশন সভায় কোম্পানিটির আইপিও অনুমোদন দিয়েছে।

ভিএফএস থ্রেড ডাইং লিমিটেড আইপিওর মাধ্যমে বাজার থেকে ২২ কোটি টাকা উত্তোলন করবে। কোম্পানিটিকে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে ২ কোটি ২০ লাখ শেয়ার ইস্যু করার অনুমোদন দিয়েছে কমিশন।

৩০ জুন ২০১৭ সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৯ টাকা ৯০ পয়সা। এ সময়ের কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২ টাকা শূন্য ২ পয়সা।

জানা যায়, এ টাকা দিয়ে কোম্পানিটি প্ল্যান্ট ও মেশিনারিজ ক্রয়, ব্যাংক ঋণ পরিশোধ ও আইপিও খরচে ব্যয় করবে।

উল্লেখ, কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে সিটিজেন সিকিউরিটিজ লিমিটেড ও ফার্স্ট সিকিউরিটিজ ক্যাপিটাল অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

শেয়ারনিউজ; ১৯ জুলাই ২০১৮

ইন্দো বাংলা ফার্মার আইপিও তারিখ পরিবর্তন

নিজস্ব প্রতিবেদক:

পুঁজিবাজার থেকে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে অর্থ উত্তোলনের অনুমোদন পাওয়া ইন্দো-বাংলা ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের আইপিও আবেদনের তারিখপ‌রিবর্তন করা হ‌য়ে‌ছে। নতুন তারিখ অনুযায়ী কোম্পানিটির আইপিও আবেদন আগামী ৯ আগষ্ট থে‌কে ১৬ আগষ্ট পর্যন্ত বি‌নি‌য়োগকারীরা এ কোম্পা‌নির আই‌পিও আ‌বেদন কর‌তে পার‌বেন।

এর আ‌গে ২২ জুলাই থে‌কে ২৬ জুলাই পর্যন্তআ‌বেদনের তা‌রিখ নির্ধারণ করা হ‌লেও অ‌নিবার্য কারণবশত তা প‌রিবর্তন করা হ‌য়ে‌ছে। কোম্পা‌নি সূ‌ত্রে এ তথ্য জানা গে‌ছে।

গত বছরের ৩ অক্টোবর বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ডএক্সচেঞ্জকমিশন (বিএসইসি) ৬১৩ তম কমিশন সভায় কোম্পানিটিকে অর্থ উত্তোলনের অনুমোদন দেওয়া হয়।

ইন্দো-বাংলা ফার্মা আইপিওর মাধ্যমে পুঁজিবাজারথেকে২০কোটিটাকাউত্তোলন করবে। কোম্পানিটি ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে ২ কোটি শেয়ার ছেড়ে বাজার থেকে এ অর্থ উত্তোলন করবে।

উত্তোলিত টাকায় অবকাঠামো নির্মাণ, মেশিনারিজ ক্রয় এবং আইপিও সংক্রান্ত খাতে ব্যয় করবে।

৩০ জুন ২০১৬ হিসাব বছর শেষে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ২.৬২ টাকা। শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১১.৬৩ টাকা।

উল্লেখ্য, কোম্পানির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে আছে এএফসি ক্যাপিট্যাল, ইবিএল ইনভেস্টমেন্টস লিমিটেড এবং সিএপিএম অ্যাডভাইজরি লি:।

শেয়ারনিউজ/ঢাকা, ১৮ জুলাই ২০১৮

আগামীকাল শেষ হচ্ছে এমএল ডাইংয়ের আইপিও

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুঁজিবাজার থেকে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে অর্থ উত্তোলনের অনুমোদন পেয়েছে বস্ত্র খাতের এমএল ডাইং লিমিটেড। কোম্পানিটির আইপিও আবেদন আগামীকাল (১৯ জুলাই) শেষ হবে। এর আগে ৮ জুলাই কোম্পানিটির আইপিও আবেদন শুরু হয়েছিল।

এর আগে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৬৪৪তম কমিশন সভায় কোম্পানিটিকে আইপিও অনুমোদন দেয়া হয়।

জানা গেছে, কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ২ কোটি সাধারণ শেয়ার ছেড়ে ২০ কোটি টাকা উত্তোলন করবে। এ জন্য প্রতিটি শেয়ারের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ টাকা।

কোম্পানিটি উত্তোলিত অর্থে যন্ত্রপাতি ও কলকব্জা ক্রয় ও স্থাপন করবে। এছাড়া বাদবাকি অর্থে আইপিও খরচ বাবদ ব্যয় করবে।

৩০ জুন ২০১৭ সমাপ্ত বছরের আর্থিক বিবরণী অনুযায়ী পুনঃমূল্যায়ন ছাড়া শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৩.২৩.৭১ টাকা ও শেয়ার প্রতি মুনাফা (ইপিএস) গড় হারে হয়েছে ২.৩৫ টাকা।

উল্লেখ্য, কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পালন করছে এনবিএল ক্যাপিটাল অ্যান্ড ইক্যুইটি ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড ও রূপালী ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

শেয়ারনিউজ; ১৮ জুলাই ২০১৮

ভিএফএস থ্রেড ডাইংয়ের লটারি আগামীকাল

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে অর্থ উত্তোলনের প্রক্রিয়াধীন ভিএফএস থ্রেড ডাইং লিমিটেডের লটারি আগামীকাল (১৯ জুলাই) অনুষ্ঠিত হবে। ওইদিন সকাল সাড়ে ১০টায় রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্সটিটিউট, আইইবি মিলনায়তন, রমনা, ঢাকায় লটারির ড্র অনুষ্ঠিত হবে। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, কোম্পানির আইপিওতে ৪৫.৫৭ গুণ আবেদন জমা পড়েছে। গত ২৪ জুন থেকে কোম্পানিটির আইপিও আবেদন শুরু হয় যা চলে ২ জুলাই, সোমবার পর্যন্ত।

কোম্পানিটির শেয়ার কেনার জন্য মোট ১১ কোটি শেয়ারের জন্য ৫০১ কোটি ২৭ লাখ টাকার আবেদন পড়েছে।

এর আগে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৬৩৮তম কমিশন সভায় কোম্পানিটির আইপিও অনুমোদন দিয়েছে।

ভিএফএস থ্রেড ডাইং লিমিটেড আইপিওর মাধ্যমে বাজার থেকে ২২ কোটি টাকা উত্তোলন করবে। কোম্পানিটিকে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে ২ কোটি ২০ লাখ শেয়ার ইস্যু করার অনুমোদন দিয়েছে কমিশন।

৩০ জুন ২০১৭ সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৯ টাকা ৯০ পয়সা। এ সময়ের কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২ টাকা শূন্য ২ পয়সা।

জানা যায়, এ টাকা দিয়ে কোম্পানিটি প্ল্যান্ট ও মেশিনারিজ ক্রয়, ব্যাংক ঋণ পরিশোধ ও আইপিও খরচে ব্যয় করবে।

উল্লেখ, কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে সিটিজেন সিকিউরিটিজ লিমিটেড ও ফার্স্ট সিকিউরিটিজ ক্যাপিটাল অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

শেয়ারনিউজ; ১৮ জুলাই ২০১৮

আবারো বাড়লো আইপিও কোটার মেয়াদ

নিজস্ব প্রতিবেদক: ২০১০ সালে পুঁজিবাজারে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের জন্য প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) ২০ শতাংশ কোটা সংরক্ষণের সময়সীমা আরও এক বছর বাড়িয়েছে সরকার। আগামী ৩০ জুন,২০১৯ তারিখ পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীরা আইপিওতে ২০ শতাংশ বরাদ্দ পাবেন।

চলতি সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে (রোববার) অর্থমন্ত্রনালয় থেকে আইপিও কোটার মেয়াদ বাড়িয়ে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে (বিএসইসি) চিঠি পাঠানো হয়েছে। বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে।

জানা যায়, গেল জুন মাসে বিএসইসির পক্ষ থেকে আইপিও কোটার মেয়াদ এক বছর বাড়ানোর জন্য আবেদন করা হয়। সেই আবেদনের প্রেক্ষিতে অর্থমন্ত্রনালয় আইপিওতে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের জন্য পূর্ব নির্ধারিত কোটার মেয়াদ বাড়িয়ে দেয়।

চলতি বছরের ৩০ জুন আইপিও কোটার মেয়াদ শেষ হয়। কিন্তু ক্ষতিগ্রস্তরা এখনও ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে না পারায় এর মেয়াদ আগামী ২০১৯ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এই সুবিধা ধাপে ধাপে বাড়ানো হয়েছে। এ নিয়ে আইপিওতে ক্ষতিগ্রস্তদের ২০ শতাংশ কোটার ৭ম মেয়াদে চলছে।

২০১০ সালের ডিসেম্বর থেকে শুরু হওয়া শেয়ারবাজারের ধসে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীরা এ সুবিধা পাচ্ছেন। ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীর সংখ্যা নয় লাখ ৩৩ হাজার।

২০১২ সালের মার্চে এই দুই বাজারের ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের জন্য বিশেষ সুবিধা বা স্কিম ঘোষণা করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। ঘোষিত প্রণোদনার আওতায় এক বছরের সুদের ৫০ শতাংশ মওকুফ এবং আইপিওতে ২০ শতাংশ কোটা সংরক্ষণের ঘোষণা দেওয়া হয়।

শেয়ারনিউজ; ১৬ জুলাই ২০১৮

ইন্দো-বাংলা ফার্মার আইপিও আবেদন শুরু ২২ জুলাই

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুঁজিবাজার থেকে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে অর্থ উত্তোলনের অনুমোদন পাওয়া ইন্দো-বাংলা ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের আইপিও আবেদনের নতুন তারিখ ঘোষণা করেছে। কোম্পানিটির আইপিও আবেদন আগামী ২২ জুলাই শুরু হবে। চলবে ২৬ জুলাই পর্যন্ত। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

কোম্পানিটি জানায়, গত ২৮ জুন উচ্চআদালত কোম্পানিটির আইপিও স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করেছে। ঋণ নিয়ে ন্যাশনাল ব্যাংকের সঙ্গে কোম্পানির সমঝোতা হওয়ায় ব্যাংকটি রিট আবেদন তুলে নিয়েছে। দুই পক্ষের মধ্যে আর কোন বিরোধ না থাকায় উচ্চআদালত আইপিও স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করেছে।

এর আগে কোম্পানিটির ৪ জন পরিচালক ঋণ খেলাপি হওয়ায় ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেডের পক্ষ থেকে বরিশালের অর্থ ঋণ আদালতে মামলা দায়ের করা হয়। এতে কোম্পানির আইপিও আবেদনে ৬ মাসের জন্য স্থগিতাদেশ দেয়া হয়েছিল।

এর আগে গত বছরের ৩ অক্টোবর বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) ৬১৩ তম কমিশন সভায় কোম্পানিটিকে অর্থ উত্তোলনের অনুমোদন দেওয়া হয়।

ইন্দো-বাংলা ফার্মা আইপিওর মাধ্যমেপুঁজিবাজার থেকে ২০ কোটি টাকা উত্তোলন করবে। কোম্পানিটি ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে ২ কোটি শেয়ার ছেড়ে বাজার থেকে এ অর্থ উত্তোলন করবে।

উত্তোলিত টাকায় অবকাঠামো নির্মাণ, মেশিনারিজ ক্রয় এবং আইপিও সংক্রান্ত খাতে ব্যয় করবে।

৩০ জুন ২০১৬ হিসাব বছর শেষে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ২.৬২ টাকা। শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১১.৬৩ টাকা।

উল্লেখ্য, কোম্পানির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে আছে এএফসি ক্যাপিট্যাল, ইবিএল ইনভেস্টমেন্টস লিমিটেড এবং সিএপিএম অ্যাডভাইসরি লি:।

শেয়ারনিউজ; ১৭ জুলাই ২০১৮

ভিএফএস থ্রেড ডাইংয়ের আইপিও লটারির তারিখ ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক: ভিএফএস থ্রেড ডাইং লিমিটেডের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) লটারি আগামী ১৯ জুলাই সকাল সাড়ে ১০টায় ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্সটিটিউট, আইইবি মিলনায়তন, রমনা, ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, গত ২৪ জুন থেকে ২ জুলাই পর্যন্ত এ কোম্পা‌নির আই‌পিও‌ আ‌বেদন অনুষ্ঠিত হয়। এর আ‌গে বিএসইসির ৬৩৮তম কমিশন সভায় এ আইপিও অনুমোদন দেওয়া হয়।

ভিএফএস থ্রেড ডাইংয়ে আপনার আবেদন জমা পড়েছে কি?
কোম্পানিটি ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে ২ কোটি ২০ লাখ শেয়ার ইস্যু করে ২২ কোটি টাকা তুলবে। এ টাকা দিয়ে কোম্পানিটি প্ল্যান্ট ও মেশিনারিজ ক্রয়, ব্যাংক ঋণ পরিশোধ ও আইপিও খরচে ব্যয় করবে।

৩০ জুন ২০১৭ সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৯.৯০ টাকা। এ সময়ের কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২.০২ টাকা।

কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে সিটিজেন সিকিউরিটিজ লিমিটেড ও ফার্স্ট সিকিউরিটিজ ক্যাপিটাল অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।