Monthly Archives: April 2014

শাহজিবাজার পাওয়ারের আইপিও লটারি ৮ মে

শাহজিবাজার পাওয়ারের আইপিও লটারির ড্র ৮ মে অনুষ্ঠিত হবে। রাজধানীর  ইঞ্জিনিয়ার ইন্সিটিউট এ সকাল ১০টায় এই লটারি শুরু হবে।

ধন্যবাদ ।

হোটেল পেনিনসুলার আইপিও লটারির ড্র ৩০ এপ্রিল

হোটেল পেনিনসুলার আইপিও লটারির ড্র ৩০ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হবে।চট্টগ্রাম এর ইঞ্জিনিয়ার ইন্সিটিউট এ সকাল ১০টায় এই লটারি শুরু হবে।

ধন্যবাদ ।

সাইফ পাওয়ারটেকের আইপিও অনুমোদন

পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) সাইফ পাওয়ারটেকের প্রাথমিক গণপ্রস্তাব বা আইপিও আবেদন মঞ্জুর করেছে। আজ মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত কমিশন সভায় এই অনুমোদন দেওয়া হয়। সভা শেষে কমিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিএসইসি জানিয়েছে, কোম্পানিটি আইপিওতে এক কোটি ২০ লাখ শেয়ার ছেড়ে বাজার থেকে ৩৬ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। ১০ টাকা অভিহিত মূল্য বা ফেসভ্যালুর সঙ্গে ২০ টাকা অধিমূল্য বা প্রিমিয়াম যোগ করে প্রতিটি শেয়ারের বিক্রয়মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৩০ টাকা। সংগৃহীত টাকা কোম্পানিটি নতুন ব্যাটারি তৈরি প্রকল্পে ব্যয় করবে।

বিএসইসি আরও জানায়, ২০১৩ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত বছরসহ তার আগের পাঁচ বছরের শেয়ারপ্রতি আয় বা ইপিএসের গড় দাঁড়িয়েছে তিন টাকা এক পয়সা। কোম্পানিটির শেয়ারের ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট।

দৈনিক প্রথম আলো

 

পেনিনসুলায় ৮০০ কোটি টাকার আবেদন জমা

দি পেনিনসুলা চট্টগ্রাম লিমিটেডের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) ৮০০ কোটি টাকার ওপর আবেদন জমা পড়েছে। সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, কোম্পানিটির আইপিওতে ১৬৫ কোটি টাকার বিপরীতে ৮০০ কোটি ৭২ লাখ ৮৮ হাজার ১০ টাকার আবেদন জমা পড়েছে, যা নির্ধারিত টাকার চেয়ে ৪.৮৫ গুণ। এর মধ্যে সাধারণ, ক্ষতিগ্রস্ত এবং মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতে ৭৯০ কোটি ৮২ লাখ ৮৮ হাজার ১০ টাকা এবং ১০ এপ্রিল পর্যন্ত প্রবাসীদের কাছ থেকে ৯ কোটি ৯০ লাখ টাকার আবেদন জমা পড়েছে।

কোম্পানিটির আইপিওতে আবেদন গ্রহণ ৩০ মার্চ শুরু হয়ে শেষ হয়েছে ৩ এপ্রিল। তবে প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য এ সুযোগ রয়েছে ১২ এপ্রিল পর্যন্ত।

প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের আবেদন রাজধানীর ঢাকা জিলা ক্রীড়া সংস্থার হলরুমে, কোম্পানির সুপারভিশন এবং কন্ট্রোলে গ্রহণ করা হবে।

পেনিনসুলা চট্টগ্রাম ১৬৫ কোটি টাকা সংগ্রহের জন্য শেয়ারবাজারে ৫ কোটি ৫০ লাখ শেয়ার ছেড়েছে। ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সঙ্গে ২০ টাকা প্রিমিয়ামসহ প্রতিটি শেয়ারের মূল্য ধরা হয়েছে ৩০ টাকা এবং ২০০ শেয়ারে মার্কেট লট।

আইপিওর মাধ্যমে সংগৃহীত টাকা দিয়ে হোটেল সম্প্রসারণে ৭ কোটি, চট্টগ্রাম বিমানবন্দরের কাছে আরেকটি নতুন হোটেল নির্মাণে ১৪১ কোটি ৫ লাখ ২৬ হাজার ৭৬৬ টাকা এবং ৩ কোটি ৬৫ লাখ টাকা আইপিও খাতে ব্যয় করা হবে।

৩০ জুন ২০১৩ সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.৪৯ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৩৩.৭৩ টাকা (রিভ্যালুয়েশনসহ)।

আইপিও প্রক্রিয়ায় কোম্পানির ইস্যু ব্যবস্থাপকের দায়িত্ব পালন করছে লঙ্কাবাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

 

শেয়ারনিউজ২৪

ফার কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজের আইপিও লটারি আজ

শেয়ারবাজারে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের অনুমোদন পাওয়া কোম্পানি ফার কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজের আইপিও লটারি আজ অনুষ্ঠিত হবে। আজ সকাল ১০টায় রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে অনুষ্ঠিত হবে। গতকাল চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।
কোম্পানিটি ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে ১ কোটি ২০ লাখ শেয়ার ছেড়ে ১২ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে।  এ শেয়ারের মার্কেট লট ৫০০টিতে। অর্থাৎ প্রতিটি লটের জন্য বিনিয়োগকারীদের ৫ হাজার টাকা জমা দিতে হবে। আইপিওর অর্থ দিয়ে কোম্পানিটি মূলধনি যন্ত্রপাতি ক্রয় এবং উৎপাদন সক্ষমতা বাড়ানোর খাতে ব্যয় করবে।
২০১৩ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী এ কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৫ টাকা ১ পয়সা ও শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য ১৫ টাকা ৫৫ পয়সা। কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে ফার্স্ট সিকিউরিটিজ সার্ভিসেস লিমিটেড।

বনিক বার্তা

বিএমবিএর সাধারণ সভায় বক্তারা মৌলভিত্তির কোম্পানিকে আইপিওতে অগ্রাধিকারের দাবি

প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) মৌলভিত্তিসম্পন্ন কোম্পানিকে অগ্রাধিকার দিতে শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থাকে আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ)। গতকাল বেলা সাড়ে ৩টায় রাজধানীর হোটেল পূর্বাণীতে অনুষ্ঠিত সাধারণ সভায় সংগঠনটি এ দাবি জানায়। সভায় বিএমবিএর সভাপতি, সহসভাপতিসহ বিভিন্ন মার্চেন্ট ব্যাংকের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।
বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে বলা হয়, বর্তমানে অভিহিত মূল্যে আইপিও অনুমোদনে বিভিন্ন পক্ষ থেকে মত দেয়া হচ্ছে। তবে যেসব কোম্পানির মৌলভিত্তি ভালো, দীর্ঘদিনের মুনাফার রেকর্ড ও সুনাম রয়েছে, সেসব কোম্পানি প্রিমিয়াম ছাড়া তালিকাভুক্ত হতে আগ্রহী হবে। তাই আইপিওর ক্ষেত্রে অভিহিত মূল্যে নয়, মৌলভিত্তি বিচার করে অনুমোদন দেয়া উচিত। পাশাপাশি কোম্পানির প্রিমিয়াম চাওয়াটা যৌক্তিক কিনা, তা বিবেচনা করা উচিত।
এছাড়া সমন্বিত হিসাবে শেয়ারবাজারে বাণিজ্যিক ব্যাংকের বিনিয়োগসীমা ৫০ শতাংশ নির্ধারণের প্রতিবাদ জানিয়েছে বিএমবিএ। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এ ধরনের সিদ্ধান্ত শেয়ারবাজারে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে বলে অভিযোগ করে সংগঠনটি। এছাড়া সঞ্চিতির ওপর বিদ্যমান কর প্রত্যাহারের পাশাপাশি লভ্যাংশের ওপর থেকে দ্বৈত কর প্রত্যাহারেরও দাবি জানায় বিএমবিএ।
সংগঠনটির সহসভাপতি আক্তার হোসেন সান্নামাত সাংবাদিকদের বলেন, প্রভিশনিংয়ের (সঞ্চিতি) ওপর ট্যাক্স (কর) দেয়া বর্তমানে মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর জন্য অন্যতম সমস্যা। এটি যেহেতু আয় নয়, তাই প্রভিশনিংয়ের ওপর আরোপিত ট্যাক্স মওকুফ করা দরকার। প্রভিশনিং আয় হিসেবে গণ্য হলে তবেই ট্যাক্স দেয়ার পক্ষে মতামত দিয়েছেন মার্চেন্ট ব্যাংকাররা।
সান্নামাত বলেন, বর্তমানে মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো শোচনীয় সময় পার করছে। এরই মধ্যে অনেক ব্যাংক মুনাফা করতে না পেরে কর্মী ছাঁটাই করেছে। এ অবস্থায় মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর সমস্যা সমাধানে ৩৭ দশমিক ৫ শতাংশের পরিবর্তে করপোরেট ট্যাক্স ২৭ দশমিক ৫ শতাংশ করা দরকার। আসন্ন বাজেটকে কেন্দ্র করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কাছে (এনবিআর) ট্যাক্স কমানোর প্রস্তাব করা হবে।
তিনি বলেন, একটি সাবসিডিয়ারির কাছ থেকে মূল কোম্পানি যখন লভ্যাংশ নেয়, তখন কর দিয়ে বাকি অংশ মুনাফায় যোগ হয়। আবার ওই মূল কোম্পানি যখন সাবসিডিয়ারি থেকে প্রাপ্ত লভ্যাংশ শেয়ারহোল্ডারদের দেয়, তখন তার ওপরও কর দিতে হয়। এতে একই পরিমাণ লভ্যাংশকৃত আয়ের ওপর দুইবার কর দিতে হয়।
তাই আগামীতে যাতে লভ্যাংশের ওপর দুইবার কর দিতে না হয়, সে লক্ষ্যে রাজস্ব বোর্ডকে ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন বিএমবিএ সহসভাপতি।
সভা শেষে সভাপতি তানজিল চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, ‘বর্তমান বাজারের নাজুক পরিস্থিতিতে ব্যাংক ও সহযোগী প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগবিষয়ক সিদ্ধান্ত নেয়া বাংলাদেশ ব্যাংকের উচিত হয়নি। এ ধরনের সিদ্ধান্ত শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনকে (বিএসইসি) বাইপাস করে নেয়া হয়েছে।’
তিনি আরো বলেন, ‘বর্তমানে লক্ষ্য করা যাচ্ছে বিএসইসি ও বাংলাদেশ ব্যাংকের মধ্যে সমন্বয় নেই। এ দুই কর্তৃপক্ষের মধ্যে বাজারের স্বার্থে সমন্বয় বজায় রাখা উচিত। তারা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে এসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এ ধরনের সিদ্ধান্ত প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ারবাজারে বিনিয়োগে নিরুত্সাহিত করবে।’
বণিক বার্তা

ফার কেমিক্যালে ৭৩ গুণ টাকা জমা

প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) ফার কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডে আবেদনকারীদের কাছ থেকে ৮৭৮ কোটি টাকার ওপর আবেদন জমা পড়েছে। সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, কোম্পানিটির আইপিওতে মোট ৮৭৮ কোটি ৬৩ লাখ ৮৫ হাজার টাকার আবেদন জমা পড়েছে, যা নির্ধারিত টাকার ৭৩.২২ গুণ।

এর মধ্যে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ৫৫৯ কোটি ৭২ লাখ ৫ হাজার টাকা, ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে থেকে ৬৬ কোটি ১৯ লাখ ৮০ হাজার টাকা, প্রবাসীদের কাছ থেকে ৩৩ কোটি ৯০ লাখ এবং মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতে ২১৮ কোটি ৮২ লাখ টাকার আবেদন জমা পড়েছে।

এর আগে গত ১০ থেকে ১৬ মার্চ পর্যন্ত কোম্পানিটির আইপিওতে আবেদন গ্রহণ করা হয়। তবে প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য এ সুযোগ ছিল ২৫ মার্চ পর্যন্ত।

ফার কেমিক্যাল ১২ কোটি টাকা সংগ্রহণের জন্য শেয়ারবাজারে ১ কোটি ২০ লাখ শেয়ার ছাড়ে। এ জন্য কোম্পানির প্রতিটি শেয়ারের মূল্য বা ফেস ভ্যালু ধরা হয়েছে ১০ টাকা এবং ৫০০ শেয়ারে মার্কেট লট।

আইপিওর মাধ্যমে সংগৃহীত অর্থ দিয়ে কোম্পানিটি ক্যাপিটাল মেশিনারি ক্রয় এবং বর্তমান মূলধন বাড়াতে ব্যয় করবে।

৩০ জুন ২০১৩ সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫.০১ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১৫.৫৫ টাকা।

কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপকের দায়িত্ব পালন করছে ফার্স্ট সিকিউরিটিজ সার্ভিসেস লিমিটেড।

শেয়ারনিউজ২৪