Monthly Archives: February 2014

মতিন স্পিনিংয়ের লটারির ড্র ২৭ ফেব্রুয়ারি

প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) আবেদন গ্রহণ শেষ বিনিয়োগকারীদের মধ্যে শেয়ার বরাদ্দ দেয়ার জন্য মতিন স্পিনিং মিলস লিমিটেডের লটারির ড্র শুরু হবে আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, ওই দিন কোম্পানিটির আইপিও লটারির ড্র সকাল ১০টায়, রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনষ্টিটিউশন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হবে।

এর আগে কোম্পানিটির আইপিওতে ২৬ জানুয়ারি থেকে ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত আবেদন গ্রহণ করা হয়। তবে প্রবাসি বিনিয়োগকারীদের জন্য এ সুযোগ ছিলো ৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

কোম্পানিটির আইপিওতে ৭৯৭ কোটি ৬৯ লাখ টাকার আবেদন জমা পড়েছে। যা নির্ধারিত টাকার চেয়ে সাড়ে ৬গুণ। এর মধ্যে সাধারণ ক্ষতিগ্রস্ত এবং মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতের বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ৭৮৮ কোটি টাকার আবেদন জমা পড়েছে। এছাড়া প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের ৯ কোটি ৬৯ লাখ টাকার আবেদন জমা পড়েছে। কোম্পানিটির আইপিওতে আবেদন জমা পড়েছে ৯ লাখ ৫৩ হাজার ২৪২টি।

মতিন স্পিনিং শেয়ারবাজার থেকে ১২৬ কোটি ১৭ লাখ টাকা উত্তোলনের জন্য ৩ কোটি ৪১ লাখ শেয়ার ছেড়েছে। এ জন্য ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সঙ্গে ২৭ টাকা প্রিমিয়ামসহ প্রতিটি শেয়ারের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৩৭ টাকা। ২০০টি শেয়ারে লট নির্ধারণ করা হয়েছে।

আইপিও থেকে সংগ্রহ অর্থ দিয়ে বিদ্যমান প্রকল্পসমূহ সম্প্রসারণে ১২৩ কোটি ২ লাখ ৫৭ হাজার ২৭০ টাকা এবং আইপিও খাতে ৩ কোটি ১৪ লাখ ৪২ হাজার ৭৩০ টাকা খরচ করবে।

৩০ জুন ২০১৩ সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩.৯৭ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৩৫.৭৩ টাকা।

কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপকের দায়িত্বে রয়েছে আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্টস লিমিটেড।

শেয়ারনিউজ২৪

ফার কেমিক্যালের আইপিও আবেদন শুরু ১০ মার্চ

প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) অনুমোদন পাওয়া ফার কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের আবেদনপত্র গ্রহণ শুরু হবে ১০ মার্চ থেকে। সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, প্রতিষ্ঠানটির আইপিওতে আবেদন গ্রহণ ১০ মার্চ শুরু হয়ে শেষ হবে ১৬ মার্চ। প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য এ সুযোগ থাকবে ২৫ মার্চ পর্যন্ত।

এর আগে গত ২১ জানুয়ারি নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) কোম্পানিটির আইপিও অনুমোদন দেয়। বিএসইসির ৫০৬তম কমিশন সভায় এ অনুমোদন দেয়া হয়।

উল্লেখ্য, ফার কেমিক্যাল ১ কোটি ২০ লাখ শেয়ার ছেড়ে শেয়ারবাজার থেকে ১২ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। কোনো প্রিমিয়াম ছাড়া এ কোম্পানির প্রতিটি শেয়ারের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ টাকা।

কোম্পানিটি শেয়ারবাজার থেকে সংগৃহীত অর্থ দিয়ে মূলধন বাড়ানো, মেশিনারি ক্রয় এবং আইপিও খাতে ব্যয় করবে।

৩০ জুন ২০১৩ সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫.০১ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১৫.১৫ টাকা।

এ কোম্পানির ইস্যু ব্যবস্থাপকের দায়িত্বে রয়েছে ফার্স্ট সিকিউরিটিজ সার্ভিসেস লিমিটেড।

শেয়ারনিউজ২৪

এএফসি এগ্রো বায়োটেকের দর বেড়েছে ৫৬০%

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) তালিকাভুক্তির পর প্রথম কার্যদিবস গতকাল ওষুধ ও রসায়ন খাতের কোম্পানি এএফসি এগ্রো বায়োটেক লিমিটেডের শেয়ারের দর বেড়েছে ৫৬০ শতাংশ।
তৃতীয় প্রান্তিকের প্রতিবেদন অনুসারে, ২০১৩ সালের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কোম্পানিটির কর-পরবর্তী নেট মুনাফা হয়েছে ৫ কোটি ৭৫ লাখ ৯০ হাজার টাকা ও ইপিএস ১ টাকা ৫২ পয়সা।
ডিএসইতে গতকাল এ শেয়ারের দর বাড়ে ৫৬০ শতাংশ বা ৫৬ টাকা। দিনভর দর ৪৮ থেকে ৬৬ টাকা ৫০ পয়সার মধ্যে ওঠানামা করে। সর্বশেষ লেনদেন হয় ৬৬ টাকায়, যা দিন শেষে দাঁড়ায় ৬৫ টাকায়। এদিন ৮ হাজার ৭২৩ বারে কোম্পানিটির মোট ৪৬ লাখ ৪৬ হাজার শেয়ার লেনদেন হয়; যার বাজারদর ছিল ২৯ কোটি ৪১ লাখ ১০ হাজার টাকা। এ কোম্পানির অনুমোদিত মূলধন ১০০ কোটি ও পরিশোধিত মূলধন ৫০ কোটি টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ১ কোটি ১৬ লাখ টাকা। মোট শেয়ার ৫ কোটি, যার মধ্যে উদ্যোক্তা-পরিচালক ৩০ দশমিক ২৯ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী ৪৮ দশমিক ১১ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে রয়েছে ২১ দশমিক ৬ শতাংশ। এর প্রতিটি শেয়ারের অভিহিত মূল্য ১০ টাকা ও ৫০০টিতে মার্কেট লট।

বণিক বার্তা

এএফসি এগ্রোর লেনদেন শুরু কাল থেকে

প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়া এএফসি এগ্রো বায়োটেক লিমিটেডের শেয়ার লেনদেন আগামীকাল মঙ্গলবার থেকে দেশের উভয় বাজারে শুরু হবে। ডিএসই ও সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, ডিএসইতে কোম্পানির ক্যাটাগরি ‘এন’, ডিএসই ট্রেডিং কোড”AFCAGRO” এবং ডিএসই কোম্পানি কোড হচ্ছে ১৮৪৮৯।

এর আগে গত ১২ জানুয়ারি কোম্পানি আইপিও লটারির ড্র অনুষ্ঠিত হয়। এ কোম্পানির আইপিওতে ১২ কোটি টাকার বিপরীতে জমা পড়ে ৭১৯ কোটি ২ লাখ ৬০ হাজার টাকা, যা মোট টাকার ৫৯.৯২ গুণ। এর মধ্যে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে মোট ৪৯২ কোটি ৬৬ লাখ ৬০ হাজার টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের কাছে থেকে ৫৯ কোটি ৩৪ লাখ ৫ হাজার টাকার, প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ২৫ কোটি ২০ লাখ ৯৫ হাজার টাকা এবং মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতের বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ১৪১ কোটি ৮১ লাক টাকার আবেদন জমা পড়েছে।

কোম্পানিটির আইপিওতে ১ কোটি ২০ লাখ শেয়ারের মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের ২০ শতাংশ, মিউচ্যুয়াল ফান্ড ও প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য ২০ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীদের ৬০ শতাংশ শেয়ার বরাদ্দ দেয়া হয়।

গত ৮ ডিসেম্বর থেকে ১২ ডিসেম্বর পর্যন্ত এ কোম্পানির আইপিওতে আবেদন জমা নেয়া হয়। তবে প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য এ সুযোগ ছিল ২১ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

এএফসি এ্গ্রো বায়োটেক ১২ কোটি টাকা সগ্রহের লক্ষ্যে শেয়ারবাজারে ১ কোটি ২০ লাখ শেয়ার ছাড়ে। এ জন্য প্রতিটি শেয়ারের অভিহিত মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ টাকা। ৫০০ শেয়ারে এ কোম্পানির মার্কেট লট নির্ধারণ করা হয়েছে।

আইপিওর মাধ্যমে সংগৃহীত অর্থ দিয়ে প্রতিষ্ঠানটি ব্যবসায়িক মূলধন হিসেবে ১০ কোটি ৯০ লাখ ৪১ হাজার ৫০০ টাকা এবং আইপিও খাতে ১ কোটি ৯ লাখ ৫৮ হাজার ৫০০ টাকা খাতে ব্যয়ের কথা উল্লেখ করে।

৩০ জুন ২০১৩ অর্ধবার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী এ প্রতিষ্ঠানের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.০১ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১১.১০ টাকা।

এ প্রতিষ্ঠানের ইস্যু ব্যবস্থাপকের দায়িত্ব পালন করছে ইমপেরিয়াল ক্যাপিটাল লিমিটেড এবং সিগমা ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড।

শেয়ারনিউজ২৪

সিএসইর আইপিও ইনডেক্স আজ চালু হচ্ছে না

দেশের দ্বিতীয় শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) আজ আইপিও ইনডেক্স চালু হওয়ার কথা থাকলেও তা সম্ভব হয়নি। আইপিও ইনডেক্স চালু করতে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন না হওয়ায় তা এ ইনডেক্স চালু হচ্ছে না বলে জানিয়েছে সিএসই প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) সৈয়দ সাজিদ হোসেন।

সাজিদ হোসেন আরো জানান, প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করে আইপিও ইনডেক্স চালু করা হবে। এ ইনডেক্স চালুর দিনক্ষণ পরবর্তীতে জানিয়ে দেয়া হবে।

আইপিও ইনডেক্স চালুর জন্য গত ৫ ফেব্রুয়ারি নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসিতে সিএসইর আইপিও ইনডেক্স প্রেজেনটেশন অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে গত ৩ ফেব্রুয়ারি সিএসইর বোর্ড সভায় আজ আইপিও ইনডেক্স চালুর সিদ্ধান্ত হয়। ওই দিন সিএসইর সভাপতি আল মারুফ খান বলেন, বর্তমান সূচকের মাধ্যমে নতুন তালিকাভুক্ত কোম্পানির পারফরমেন্স পুরোপুরি পর্যবেক্ষণ করা সম্ভব হয় না। কারণ বর্তমান ব্যবহৃত সূচক সব কোম্পানির ভিত্তিতে তৈরি করা। তাই আইপিও ইনডেক্স চালুর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এতে বিনিয়োগকারীদের নতুন কোম্পানির গতিবিধি বুঝতে সহজ হবে বলে মনে করেন তিনি। সিএসই সভাপতি আরো বলেন, সর্বোচ্চ ২ বছরের তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলো নিয়ে আইপিও সূচক করা হবে।

জানা যায়, ভারতের ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জ (এনএসই) প্রস্তাবিত সূচক চালুর জন্য কাজ করছে।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আইপিওর জন্য পৃথক সূচক চালু হলে বিনিয়োগকারীদের দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা পূরণ হবে। কারণ নতুন তালিকাভুক্ত কোম্পানি নিয়ে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের কমতি থাকে না। এছাড়া নতুন কোনো কোম্পানি তালিকাভুক্তির এক বছর পর্যন্ত এর গতিবিধি পর্যবেক্ষণে রাখেন বিনিয়োগকারীরা।

শেয়ারনিউজ২৪

মতিন স্পিনিংয়ে ৭৯৭ কোটি টাকার আবেদন জমা

প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) আবেদনে মতিন স্পিনিং মিলস লিমিটেডে ৭৯৭ কোটি ৬৯ লাখ টাকার আবেদন জমা পড়েছে। কোম্পানিটির আইপিওতে সাধারণ, ক্ষতিগ্রস্ত এবং মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতের বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে এ পরিমাণ টাকা জমা পড়েছে। কোম্পানির ইস্যু ব্যবস্থাপক আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্টস সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র মতে, সাধারণ ক্ষতিগ্রস্ত এবং মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতের বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ৭৮৮ কোটি টাকার আবেদন জমা পড়েছে। এছাড়া প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের ৯ কোটি ৬৯ লাখ টাকার আবেদন জমা পড়েছে। প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের আবেদনের সম্পূর্ন পরিমান এখনো হিসেব করা হয়নি কোম্পানিটির আইপিওতে আবেদন জমা পড়েছে ৯ লাখ ৫৩ হাজার ২৪২টি।

কোম্পানিটির আইপিতে আবেদন গ্রহণ করা হয় ২৬ জানুয়ারি থেকে ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত। তবে প্রবাসি বিনিয়োগকারীদের জন্য এ সুযোগ রয়েছে ৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের আবেদন ঢাকা জিলা ক্রীড়া সংসদ মিলনায়তনে সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত গ্রহণ করা হবে।

মতিন স্পিনিং শেয়ারবাজার থেকে ১২৬ কোটি ১৭ লাখ টাকা উত্তোলনের জন্য ৩ কোটি ৪১ লাখ শেয়ার ছেড়েছে। এ জন্য ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সঙ্গে ২৭ টাকা প্রিমিয়ামসহ প্রতিটি শেয়ারের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৩৭ টাকা। ২০০টি শেয়ারে লট নির্ধারণ করা হয়েছে।

আইপিও থেকে সংগ্রহ অর্থ দিয়ে বিদ্যমান প্রকল্পসমূহ সম্প্রসারণে ১২৩ কোটি ২ লাখ ৫৭ হাজার ২৭০ টাকা এবং আইপিও খাতে ৩ কোটি ১৪ লাখ ৪২ হাজার ৭৩০ টাকা খরচ করবে।

৩০ জুন ২০১৩ সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩.৯৭ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৩৫.৭৩ টাকা।

কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপকের দায়িত্বে রয়েছে আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্টস লিমিটেড।

শেয়ারনিউজ২৪

এমারেল্ড অয়েলের লটারির ড্র আজ

 

প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে আবেদন গ্রহণের পর শেয়ার বরাদ্দের জন্য এমারেল্ড অয়েল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের লটারির ড্র আজ ৬ ফেব্রুয়ারি, বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হবে। কোম্পানির কর্মকর্তা মো. ইলিয়াস এ তথ্য শেয়ারনিউজ২৪.কমকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি আরো জানা, আজ সকাল ১০টায়, রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে এ লটারির ড্র অনুষ্ঠিত হবে।

এর আগে গত ৬ থেকে ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত কোম্পানিটির আইপিওতে আবেদন জমা নেয়া হয়। আর প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য এ সুযোগ ছিল ২১ জানুয়ারি পর্যন্ত।

কোম্পানিটির আইপিওতে ২০ কোটি টাকার বিপরীতে ৮০০ কোটি ৭২ লাখ টাকা জমা পড়েছে, যা সংগৃহীত টাকার তুলনায় ৪০.০৪ গুণ। এর মধ্যে সাধারণ কোটায় ৫২৪ কোটি ৪৮ লাখ ৮০ হাজার টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত কোটায় ৬৩ কোটি ৫৪ হাজার ৪০ হাজার টাকা, প্রবাসী কোটায় ৩৪ কোটি ১৮ লাখ ৮০ হাজার টাকা এবং মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতে ১৭৮ কোটি ৫০ লাখ টাকার আবেদন জমা পড়েছে।

আইপিওর মাধ্যমে এমারেল্ড অয়েল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড ২০ কোটি টাকা সংগ্রহের জন্য ২ কোটি শেয়ার ছাড়ে। কোম্পানির প্রতিটি শেয়ারের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ টাকা এবং ৫০০ শেয়ারে মার্কেট লট।

সংগৃহীত টাকায় কোম্পানিটি মূলধন বাড়াতে ৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা, মেয়াদি ঋণ পরিশোধে ১২ কোটি টাকা এবং ১ কোট ৫০ লাখ টাকা আইপিও খাতে ব্যয় করবে।

৩০ জুন ২০১৩ আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, এমারেল্ড অয়েলের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.৮৫ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১৪.০৬ টাকা।

কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপকের দায়িত্বে রয়েছে অ্যালায়েন্স ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেড। এর আগে গত ১৯ নভেম্বর নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) এমারেল্ড অয়েল ইন্ডাস্ট্রিজের আইপিও অনুমোদন করে।

শেয়ারনিউজ২৪

হা-ওয়েলের আইপিও আবেদন শুরু ১৭ ফেব্রুয়ারি

প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) অনুমোদন পাওয়া হা-ওয়েল টেক্সটাইলস (বিডি) লিমিটেডের টাকা সংগ্রহ আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হবে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, প্রতিষ্ঠানটির আইপিওতে টাকা গ্রহণ ১৭ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়ে ২৩ ফেব্রুয়ারি শেষ হবে। তবে প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য এ সুযোগ থাকবে ৪ মার্চ পর্যন্ত।

নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৫০৪তম সভায় এ অনুমোদন দেয়া হয়।

কোম্পানিটি শেয়ারবাজারে ২ কোটি শেয়ার ছেড়ে ২০ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। এ জন্য প্রতিটি শেয়ারের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ টাকা। মার্কেট লট নির্ধারণ করা হয়েছে ৫০০ শেয়ারে।

কোম্পানিটি আইপিওর মাধ্যমে সংগৃহীত অর্থ দিয়ে মেশিনারিজ ও জমি ক্রয়, ভূমি উন্নয়ন, নতুন ফ্যাক্টরি ভবন নির্মাণ, বর্তমান মেশিনারিজ পরিবর্তন এবং আইপিও খাতে ব্যয় করবে।

৩০ জুন ২০১৩ সমাপ্ত বছরের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩.৬৬ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ২৮.৭৮ টাকা।

এ কোম্পানির ইস্যু ব্যবস্থাপকের দায়িত্বে রয়েছে আলফা ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড এবং সিটিজেন সিকিউরিটিজ অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

শেয়ারনিউজ২৪