Monthly Archives: March 2011

Book building and stock market schemers

Shamsul Huq Zahid

The Securities and Exchange Commission (SEC) and the so-called stakeholders have been in brain-storming sessions to right the Book Building Method (BBM) that was deliberately wronged during the recent heydays of the stock market.

What is being done now to correct a method can be better described as the post-facto evaluation of the BBM that is widely practiced in the capital markets across the globe. The Bangladeshmarket has been exposed to it only recently and the experience gathered so far is highly unpalatable, thanks to capital market schemers and an otherwise lenient securities regulator.

Following widespread criticisms from different quarters against fleecing of small investors through the abuse of the BBM, the SEC on March 14 recommended some changes in it and sought opinion from the stakeholders concerned.

The securities regulator has proposed that the maximum allowable price earning (PE) ratio will be 15 for a company willing to go public under the BBM and offer price must not exceed five times its net asset value per share. And the P/E should be calculated on the basis of the average earning per share in preceding three years. The SEC has also suggested 60 days’ lock-in period for successful bidders under BBM, instead of existing 15 days and subscription period to 15 days down from 25 days. It has also recommended a cut in institutional bidding period from 72 hours down to 48 hours.

The stakeholders, according to media reports, at a meeting convened by the SEC last Monday, did not agree with most of the SEC proposals and recommended that the exercise be postponed until the publication of the much-hyped report of the stock market probe committee, headed by Khandaker Ibrahim Khaled.

The stakeholders who included people from the country’s two bourses, associations of merchant bankers and publicly listed companies said since the probe committee would deal with the BBM and suggest necessary changes in it, it would be better to wait until the publication of its report. The SEC later endorsed this view.

In fact, there is nothing wrong with the BBM, introduced through a gazette notification on March 19, 2009. It is almost identical to the BBM introduced in neighbouring India more than two decades back.

The problems, it seems, were with the issuers, the bidders, the auditors and the securities regulator. There are ample reasons to believe that the BBM was deliberately abused in a market dominated by ignorant retail investors who were under the sway of rumours. The investors devoured everything that came in their way.

The issuers who included people with strong political connections made the best use of the opportunity as the regulator proved to be less assertive and vulnerable to outside pressure.

That the regulator is weak was well demonstrated when in a notification issued on November 14, 2010, it relaxed some mandatory BBM provisions for power and gas companies included in the so-called thrust sectors. In the original rules, a company willing to go public under BBM, was required to be in commercial operation for at least immediate past three years and profit-earning entity for two out of last three complete financial years. But the SEC in its November 14 amendments to the BBM rules reduced both the periods to one year for the ‘thrust sector’ companies, namely power and gas infrastructure companies. The people concerned are in the know of the things that had prompted the SEC to amend the rules.

Actually, the introduction of the BBM was aimed at luring big companies to the stock market since the method offers the opportunities to companies with strong fundamentals to get real worth of their stocks which is not possible under the fixed price floatation of issues. But, unfortunately, not a single big company has availed itself of the BBM facility to become public. The proponents of the BBM do need to examine the reasons behind the reluctance of large companies about not exploiting the BBM.

The expectation of the stakeholders and the regulator from the probe committee, which is expected to submit its report to the government soon, appears to be high, to some extent. The primary task of the probe body to identify the individuals and institutions involved in the stock market scam, methods used to siphon off money from the market and suggest remedial measures. But it would be too much to expect that the probe body would look into all the provisions of the BBM, locate loopholes in the same and suggest amendments.

Realistically speaking, what happened in the name of BBM in recent months would not happen now if any company decides to go public following the existing BBM provisions. Institutional investors who clamoured for bidding issues are unlikely to be enthusiastic now because of the prevailing market conditions. Manipulators, no matter how expert they are, would find it hard to lure retail investors to new issues.

Source: The financial express, 30 March, 2011

Mutual fund IPOs face under-subscriptions

The IPO (initial public offering) subscription of mutual funds (MFs) are facing under-subscription due to investors’ poor response, market sources said.

The situation deteriorated after the recent stock market crash that also made investors’ confidence very shaky.

Some fund managers termed the present crisis of MFs as “unfortunate”.

However, they also expressed their hope that investors’ confidence to MFs would be restored when the market would bounce back to a normal situation.

Recently two MFs faced under-subscriptions as their fund managers have failed to complete the subscriptions within the timeframe, set by the Securities and Exchange Commission (SEC).

“This is the first time that two MF IPO seekers got under subscription due to poor response of primary unit-holders,” an SEC official told the FE.

He said, the other fund managers presently are in uncertainty regarding the full subscriptions of the MFs, which are already approved by the SEC to go public.

“This crisis is very unfortunate for our MF industry,” Reaz Islam, a fund manager, told the FE.

“Our previous practice of gaining over-night profit through the units of MFs is an obstacle in establishing this industry,” he said.

He said both the fund managers and investors will have to follow the worldwide practice for the sake of MF industry.

The MFs, which went public during the bullish period of the stock marketexperienced better subscriptions.

For example, EBL First Mutual Fund had been over-subscribed by 17.19 times, ICB AMCL 2nd Mutual Fund by 8.29 times, ICB Employees Provident Mutual Fund One : Scheme One by 7.91 times, Trust Bank 1st Mutual Fund by 10.28 times, DBH 1st Mutual Fund 10.77 times, Prime Bank 1st ICB AMCL Mutual Fund by 10.77 times, IFIC Bank 1st Mutual Fund 17.59 times and Phoenix Finance 1st Mutual Fund 19.23 times.

Recently, the SEC increased the maximum limit for individuals from Tk 100 million to Tk 250 million in the placement shares of MFs, as the fund managers were facing problems to complete the placement portions.

The regulator has also lifted the limitations for institutional investors in the placement shares of MFs.

The regulator has also paved the way for MFs to quote prices in the bidding process of the IPO issues that will go public under the book building method.

But presently, the MFs are not able to do so as, the ministry of finance temporarily suspended the book building method.

Source: The financial express, 29 March, 2011

Book building reforms hinge on probe report

Regulators will decide on reforms to the controversial book building system after a stockmarket probe committee submits its report to the government early next month.

Stakeholders proposed that the stockmarket regulator should decide the fate of the book building system after submission of the probe report. The Securities and Exchange Commission accepted it.

The SEC sat with the stakeholders, who were earlier asked to come up with suggestions on modifications of the book building method. The commission’s Chairman Ziaul Haque Khondker presided over the meeting.

Representatives of Dhaka and Chittagong stock exchanges, Bangladesh Merchant Bankers’ Association and Bangladesh Association of Publicly Listed Companies Association were present.

Apart from its findings on the recent stockmarket debacle, the probe committee is expected to give advice on amendments to securities rules and regulations, including the book building regulation, an IPO pricing mechanism that was criticised by economists, market experts and analysts before it was suspended in January.

“If so, it will be better putting the issue on the table after seeing the probe committee’s recommendations,” said an SEC official who attended the meeting.

Ahasanul Islam Titu, senior vice-president of Dhaka Stock Exchange, said: “After reviewing the concrete proposals of the probe committee, if there is any, we will fine-tune the book-building method.”

Echoing Titu, Chittagong Stock Exchange President Fakhor Uddin Ali Ahmed said, “A modified book-building method depends on the report of the probe committee that, we expect, will propose a new guideline on the system.”

Earlier on March 14, the SEC recommended some changes in the book building method and sought suggestions from the market stakeholders on the proposed changes.

But the stakeholders opposed some of the SEC’s suggestions on fixing an indicative price based on price-earnings (PE) and net asset value (NAV), and calculation method of earnings per share (EPS), meeting participants said.

In line with the SEC recommendations, the offer price of a company’s share will be no more than 15 PE (price-earnings), or must not exceed five times its net asset value per share, or whichever is lower, under the book building system.

The PE should be calculated based on the company’s preceding three years’ average earnings per share (EPS) mentioned in the audited accounts.

A committee comprising the Institute of Chartered Accountants of Bangladesh, the Institute of Cost and Management Accountants of Bangladesh and Dhaka and Chittagong bourses will scrutinise the audited accounts submitted by the companies before IPO.

The officials of other departments concerned will also be on the committee. If the committee has any comments or opinions after the scrutiny, those will have to be sent to the commission within seven working days.

The lock-in period for institutional investors has been proposed to be 60 days instead of 15, while the subscription period at 15 days, down from 25.

The SEC also recommended a cut in the institutional bidding period from 72 hours down to 48 hours.

After the bidding, the issuer company and the issue manager will have to submit the final IPO prospectus to the SEC within 48 hours.

The printed draft IPO prospectus will have to be sent to the related institutions and organisations at least five days before the road-show, where DSE and CSE officials will be present.

Source: The daily star, 29 March, 2011

 

বুক বিল্ডিং পদ্ধতি সংশোধন – তদন্ত প্রতিবেদনের পর পদক্ষেপের সুপারিশ

পুঁজিবাজারে কারসাজি তদন্তে গঠিত কমিটির প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ার আগ পর্যন্ত বুক বিল্ডিং পদ্ধতির কার্যক্রম স্থগিত রাখাসহ পদ্ধতিটি সংশোধনের উদ্যোগ থেকে নিয়ন্ত্রক সংস্থা সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনকে (এসইসি) বিরত থাকার দাবি জানিয়েছেন বাজার-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নেতারা।
এসইসির উদ্যোগে আয়োজিত বুক বিল্ডিং পদ্ধতির সংশোধন নিয়ে এক মতবিনিময় সভায় গতকাল সোমবার তাঁরা আনুষ্ঠানিকভাবে এ অভিমত ও দাবি জানান।
এসইসির চেয়ারম্যান জিয়াউল হক খোন্দকার বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। এ সময় চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সভাপতি ফখরউদ্দিন আলী আহমদ, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি আহসানুল ইসলাম, বাংলাদেশ পাবলিকলি লিস্টেড কোম্পানিজ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সালমান এফ রহমান এবং মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধিসহ প্রতিষ্ঠানগুলোর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠক শেষে ফখরউদ্দিন আলী আহমদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন প্রকাশের পর এ ব্যাপারে কমিটির কোনো সুপারিশ থাকলে সে অনুযায়ী বুক বিল্ডিং পদ্ধতি সংশোধন করার কথা এসইসিকে বলেছি।’
আহসানুল ইসলাম বলেন, ‘বর্তমান প্রেক্ষাপটে বুক বিল্ডিং পদ্ধতি যে বন্ধ রয়েছে তা আপাতত অব্যাহত থাকুক, এটাই আমাদের সম্মিলিত অভিমত।’
তিনি বলেন, তদন্ত কমিটি বুক বিল্ডিং পদ্ধতি কীভাবে বাজারে সমস্যা সৃষ্টি করেছে বা আদৌ করেছে কি না, তা খতিয়ে দেখছে। সুতরাং তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে যথাযথ সুপারিশ এলে সেটা পর্যালোচনা করে পদ্ধতি সংশোধনের চিন্তাভাবনা করা যাবে।
আহসানুল ইসলাম অবশ্য বলেন, ‘বাজার স্থিতিশীল করতে বুক বিল্ডিং পদ্ধতির প্রয়োজন রয়েছে। তবে বুক বিল্ডিংয়ে শেয়ারের মূল্য স্থির করে দেওয়ার কোনো নিয়ম থাকুক সেটাও আমরা চাই না। এ পদ্ধতিতে শেয়ারের মূল্য কী হবে, সেটা বাজার শক্তির ওপর ছেড়ে দেওয়া উচিত। বর্তমান আইন অনুযায়ী কোনো কোম্পানি স্থির মূল্য পদ্ধতিতে আসতে চাইলে আসতে পারবে।’
এমজেএল বাংলাদেশ লিমিটেড ও এমআই সিমেন্টের তালিকাভুক্তির ব্যাপারে আহসানুল ইসলাম বলেন, কোম্পানির পক্ষ থেকে বিনিয়োগকারীদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার বিষয়টি আইনত বৈধ নয়। বরং সঠিক পুনঃক্রয় নীতি অনুযায়ী আসতে চাইলে তারা আসতে পারবে।
এদিকে গতকাল এসইসি এমআই সিমেন্টের তালিকাভুক্তির মেয়াদ ১৪ দিন বাড়িয়েছে। নিয়মানুযায়ী প্রাথমিক শেয়ারের বিপরীতে চাঁদা গ্রহণের (সাবস্ক্রিপশন) শেষ হওয়ার ৭৫ দিনের মধ্যে তালিকাভুক্ত হতে হয়। এ নিয়মানুযায়ী গতকাল কোম্পানিটির তালিকাভুক্তির মেয়াদ শেষ হয়েছে বলে এসইসি জানিয়েছে।

Source: The daily prothom-alo, 29 March, 2011

মবিল যমুনার তালিকাভুক্তির সময় দু’সপ্তাহ বৃদ্ধি

প্রাথমিক শেয়ার বিক্রি করে লোকসান হলে সংশিস্নষ্ট শেয়ারহোল্ডারকে ৰতিপূরণ প্রদানের বিষয়ে জটিলতার নিরসন না হওয়ায় মবিল যমুনা লুব্রিক্যান্টের (এমজেএল) তালিকাভুক্তির সময়সীমা দু’সপ্তাহ বৃদ্ধি করেছে সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি)। কোম্পানিটির আবেদনের প্রেৰিতে তালিকাভুক্তির জন্য আগামী ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত সময় দেয়া হয়েছে। গতকাল রবিবার এসইসির পৰ ঢাকা স্টক এঙ্চেঞ্জ (ডিএসই), চট্টগ্রাম স্টক এঙ্চেঞ্জ (সিএসই) এবং সংশিস্নষ্ট কোম্পানিকে এ সংক্রানত্ম চিঠি পাঠানো হয়েছে।
জানা গেছে, প্রাথমিক শেয়ারহোল্ডারদের ৰতিপূরণ প্রদানের শর্তে গত মঙ্গলবার মবিল যমুনার তালিকাভুক্তির বিষয়ে এসইসির পৰ থেকে দুই স্টক এঙ্চেঞ্জকে প্রয়োজনীয় পদৰেপ গ্রহণ করতে বলা হয়। কিন্তু ডিএসইর তালিকাভুক্তি বিভাগ আইনজীবীর মতামতের ভিত্তিতে বিষয়টি নিয়ে আপত্তি তুলে। ৰতিপূরণ প্রদানের ৰেত্রে ১৯৯৪ সালের কোম্পানি আইনের ৫৭(২) এর গ ধারাকে ভিত্তি ধরা হলেও ওই ধারায় প্রিমিয়াম আয় থেকে এ ধরনের ব্যয় অনুমোদন করে না বলে ডিএসই মনে করে। এ কারণে তালিকাভুক্তি কমিটি মবিল যমুনার দেয়া অঙ্গীকারনামার ভিত্তিতে তালিকাভুক্তির বিষয়ে নেতিবাচক অবস্থান ব্যক্ত করেছে। পরে গত বৃহস্পতিবার ডিএসই পরিচালনা পর্ষদ সভায় ৰতিপূরণ প্রদানের শর্তকে অগ্রহণযোগ্য হিসেবে আখ্যায়িত করে মবিল যমুনার তালিকাভুক্তির প্রসত্মাব নাকচ করা হয়।
ৰতিপূরণের অঙ্গীকার নাকচ হয়ে যাওয়ায় মবিল যমুনার তালিকাভুক্তি নিয়ে নতুন করে জটিলতা সৃষ্টি হয়। প্রাথমিক গণপ্রসত্মাবের (আইপিও) মাধ্যমে শেয়ার বরাদ্দের পর ৭৫ দিনের মধ্যে তালিকাভুক্তির বিধান থাকলেও এই কোম্পানিটি সময় মতো তা করতে পারবে কিনা_ সে বিষয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে। আইপিওর মাধ্যমে প্রবাসীদের কাছ থেকে টাকা জমা নেয়ার শেষ সময়ের হিসাবে আগামী ৩১ মার্চ মবিল যমুনার তালিকাভুক্তির শেষ দিন। তবে বিষয়টি নিয়ে জটিলতা তৈরি হওয়ায় কোম্পানির পৰ থেকে এসইসির কাছে সময় বাড়ানোর আবেদন করা হয়। এর প্রেৰিতে তালিকাভুক্তির সময়সীমা দু’সপ্তাহ বৃদ্ধি করা হয়েছে।
উলেস্নখ্য, মবিল যমুনা লুব্রিক্যান্ট লিমিটেড (এমজেএল) পুঁজিবাজারে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের ৪ কোটি শেয়ার ছেড়েছে। এজন্য শেয়ার প্রতি ১৪২ টাকা ৪০ পয়সা প্রিমিয়ামসহ বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে কোম্পানির শেয়ারের বরাদ্দ মূল্য নির্ধারণ করা হয় ১৫২ টাকা ৪০ পয়সা। ফলে ৪০ কোটি টাকার শেয়ার ছেড়ে কোম্পানিটি বাজার থেকে ৬০৯ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে। মবিল যমুনা লুব্রিক্যান্টের সর্বশেষ বার্ষিক হিসাবে ইপিএস ২ টাকা ৪৫ পয়সা। এই কোম্পানির প্রতিটি শেয়ারের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১৫২ টাকা ৪০ পয়সা। ফলে মবিল যমুনার পিই দাঁড়াচ্ছে ৬২।
পুঁজিবাজার পরিস্থিতি নিয়ে গত ২২ জানুয়ারি রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের ডাকা বৈঠকে বুকবিল্ডিং পদ্ধতির অপব্যবহার করে পুঁজিবাজার থেকে অতিরিক্ত অর্থ তুলে নেয়ার প্রবণতা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয়। বৈঠকে মবিল যমুনা ও এমআই সিমেন্টের নির্ধারিত মূল্যকে কোম্পানির মৌলভিত্তির তুলনায় অস্বাভাবিক হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। বৈঠকে বুকবিল্ডিং পদ্ধতি সংক্রানত্ম বিধি সংশোধন করে স্থায়ীভাবে এ ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়েও ঐকমত্য প্রতিষ্ঠিত হয়। তবে মবিল যমুনা ও এমআই সিমেন্টের আইপিও আবেদন প্রক্রিয়া শেষ হয়ে যাওয়ায় এ দু’টি কোম্পানির সঙ্গে সমঝোতার শেয়ারহোল্ডারদের ৰতিপূরণ প্রদানের শর্ত আরোপের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

Source: The daily janakantha, 28 March, 2011

‘নির্ধারিত মূল্য’ পদ্ধতি সক্রিয় করার প্রস্তাব দেবে চার প্রতিষ্ঠান

পুঁজিবাজারে বিপর্যয়ের কারণ অনুসন্ধানে গঠিত তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন পেশ করার আগে বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে সংশোধনী না আনার পৰে অবস্থান নিয়েছে দেশের দুই স্টক এঙ্চেঞ্জ, বাংলাদেশ এ্যাসোসিয়েশন অব পাবলিকলি লিস্টেড কোম্পানিজ (বিএপিএলসি) এবং বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স এ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ)। একইসঙ্গে আপাতত বুকবিল্ডিং পদ্ধতি কার্যকর না করে ইতোমধ্যে রোড শো’র মাধ্যমে নির্দেশক মূল্য নির্ধারণ করে ফেলা কোম্পানিগুলোকে নির্ধারিত মূল্য পদ্ধতিতে পুঁজিবাজারে নিয়ে আসতে চায় তারা। বুকবিল্ডিং পদ্ধতি নিয়ে সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এঙ্চেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) বৈঠকে চার প্রতিষ্ঠানের পৰ থেকে এ প্রসত্মাব দেয়া হবে। আজ সোমবার সকাল ১১টায় এসইসিতে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হবে বলে সংশিস্নষ্ট সূত্রে জানা গেছে।
সূত্র জানায়, বুকবিল্ডিং পদ্ধতির সংস্কার নিয়ে গত ২১ মার্চ এসইসিতে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে এসইসির পৰ থেকে দুই স্টক এঙ্চেঞ্জ, বিএপিএলসি এবং বিএমবিএর নেতাদের কাছে সংশোধনী প্রসত্মাবগুলো তুলে ধরা হয়। ওই বৈঠকে বিএপিএলসির চেয়ারম্যান সালমান এফ রহমান শেয়ারের মূল্য নির্ধারণে জটিলতা এড়াতে বুকবিল্ডিং পদ্ধতি বাতিলের প্রসত্মাব করেছিলেন। তিনি নির্ধারিত মূল্য (ফিঙ্ড প্রাইস) পদ্ধতির মাধ্যমে পুঁজিবাজারে নতুন কোম্পানি তালিকাভুক্তির প্রসত্মাব করেন। তবে ডিএসই-সিএসই, বিএমবিএ প্রতিনিধি এবং এসইসি কর্মকর্তারা তাঁর এই প্রসত্মাবের বিরোধিতা করেন।
ওই বৈঠকে দুই স্টক এঙ্চেঞ্জ, বিএপিএলসি এবং বিএমবিএ প্রতিনিধিরা তাৎৰণিকভাবে এসইসির প্রসত্মাবের ওপর কোন মতামত জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এ কারণে পরবর্তীতে আরেকটি বৈঠক করে সব প্রতিষ্ঠানের মতামত গ্রহণের সিদ্ধানত্ম নেয়া হয়। ওইদিনই ২৮ মার্চ আজ বুকবিল্ডিং পদ্ধতি নিয়ে আরেকটি বৈঠকের সিদ্ধানত্ম নেয়া হয়। কমিশনের প্রসত্মাবের ওপর নিজ নিজ ফোরামে আলোচনার পর আজকের বৈঠকে মতামত পেশ করার কথা।
তবে এসইসির সঙ্গে বৈঠকের আগেই গত শনিবার বুকবিল্ডিং পদ্ধতি নিয়ে নিজেদের মধ্যে অনানুষ্ঠানিক বৈঠক করেছেন দুই স্টক এঙ্চেঞ্জ, বিএপিএলসি এবং বিএমবিএ নেতারা। বৈঠকে তদনত্ম কমিটির সুপারিশ পাওয়ার আগে বুকবিল্ডিং পদ্ধতি সংশোধনের উদ্যোগ স্থগিত রাখার বিষয়ে মতৈক্য হয়। এসইসির সঙ্গে বৈঠকে চার সংগঠনের পৰ থেকে এ বিষয়টি তুলে ধরা হবে বলে জানা গেছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম স্টক এঙ্চেঞ্জের (সিএসই) সভাপতি ফখরউদ্দীন আলী আহমেদ রবিবার জনকণ্ঠকে বলেন, পুঁজিবাজার সম্পর্কে তদনত্ম কমিটির কাজ শেষ পর্যায়ে চলে এসেছে। হয়ত বা সপ্তাহখানেকের মধ্যেই কমিটি তাদের প্রতিবেদন পেশ করবে। কমিটির প্রতিবেদনে অন্যান্য বিষয়ের সঙ্গে বুকবিল্ডিং পদ্ধতি নিয়েও সুপারিশ থাকতে পারে। এ কারণে কমিটির সুপারিশগুলো পাওয়ার পরই বুকবিল্ডিং পদ্ধতির সংস্কার করা উচিত। এর আগে তাড়াহুড়ো করে কিছু করলে একই বিষয়ে দু’বার কাজ করতে হতে পারে।
তিনি বলেন, নানা কারণে বুকবিল্ডিং পদ্ধতি ঠিকভাবে কাজ করেনি। ফলে পদ্ধতিটি বিভিন্ন মহলে সমালোচিত হয়েছে। সমালোচনার মুখে সরকারের পক্ষ থেকে পদ্ধতিটি স্থগিত করা হয়েছে। ফলে এ বিষয়ে তদনত্ম কমিটির মতামত পর্যালোচনা করেই পরবর্তী সিদ্ধানত্ম নেয়া উচিত।
বাজারে শেয়ার সরবরাহে স্থবিরতা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে পুঁজিবাজারে নুতন শেয়ার সরবরাহের ৰেত্রে এক ধরনের বন্ধ্যত্ব তৈরি হয়েছে। এটা বাজারের জন্য ভাল বিষয় নয়। শেয়ার সরবরাহের ধারা অব্যাহত রাখতে নিয়ন্ত্রক সংস্থাসহ সবাইকে সচেষ্ট হতে হবে। বিশেষ করে ইসু্য ব্যবস্থাপক প্রতিষ্ঠানগুলোকে উদ্যোগী হতে হবে। বর্তমান অবস্থায়ও যে শেয়ারবাজার থেকে মূলধন সংগ্রহ করা যায়_ উদ্যোক্তাদের তা বোঝাতে হবে। দেশের স্বার্থে সবাইকে এ বিষয়ে মনোযোগী হতে হেব।
সিএসই সভাপতি আরও বলেন, বুকবিল্ডিং পদ্ধতি কার্যকর না হওয়া পর্যনত্ম নির্ধারিত মূল্য পদ্ধতিতে নতুন নতুন কোম্পানিকে বাজারে নিয়ে আসতে হবে। ইতোমধ্যে যেসব কোম্পানি বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে বাজারের আসার প্রক্রিয়া শুরম্ন করেছিল, সেসব কোম্পানিকেও নির্ধারিত মূল্যে বাজারে আনা যেতে পারে। উদ্যোক্তাদের দিক থেকে সদিচ্ছা থাকলে এৰেত্রে কোন সমস্যা হওয়ার কথা নয়। এজন্য ইসু্য ব্যবস্থাপকদের কার্যকর ভূমিকা গ্রহণ করা উচিত।

Source: The daily janakantha, 28 March, 2011

Regulator hopeful of MJL, MI Cement listings

The stockmarket regulator looks optimistic about finding a way for the listings of MJL Bangladesh Ltd and MI Cement Factory Ltd, though the premier bourse has turned down requests for the twin listings.

The Securities and Exchange Commission will put the issue up for discussion after receiving the Dhaka Stock Exchange’s rejection letter formally.

“There should be a way out. The commission will scrutinise the DSE’s logic behind the listing refusal,” said a senior SEC official.

The regulator will have to weigh and consider the interests of all parties — investors, issuers and the market, the official added.

The two companies, however, left the listing issue to the SEC and DSE.

“Both the SEC and DSE have their own points. So, we left it to the SEC and DSE to resolve the matter. Whatever the decision, we are ready to accept it,” said Azam J Chowdhury, managing director of MJL Bangladesh.

The DSE on Thursday turned down the listing proposals of MJL Bangladesh and MI Cement in response to an instruction from the regulator that asked the exchanges to take necessary steps about the twin companies’ listing in line with the existing rules.

“The DSE board took the decision as the two companies’ proposal of compensation to the investors from their ‘share premium account’ conflicts with rules,” DSE Senior Vice-president Ahsanul Islam Titu had said.

The two companies had earlier said they would compensate the retail investors as per clause 57(2)C of the Companies Act, if their share prices go below the IPO prices within six months of trading.

Secondly, Titu had said, the compensation is not a practical issue in the context of our market, and it will be difficult to maintain a record of which investor has lost how much.

The listing of MJL Bangladesh and MI Cement faced a hurdle when the stockmarket regulator suspended book building system in January this year acting upon a government instruction.

The government later said the two companies can be allowed on condition of buying back by the sponsors if their share prices go below the IPO prices within one month of trading.

The Listing Committee of the DSE also sat on the issue on March 22 and came up with a conclusion that if the two companies cannot be listed in line with their compensation offer, it will be conflicting with the Companies Act.

Moreover, the committee observed, it will give rise to huge complexities also. The companies and the stockbrokers will face problems in managing lakhs of beneficiary owners’ accounts, if their share prices drop below the IPO prices.

If MJL Bangladesh and MI Cement cannot be listed within the stipulated time, the two IPOs will be scrapped as per listing rules.

Source: The daily star, 28 March, 2011

 

Amendment a must in book building method

The stakeholders of the stock market have decided not to favour the proposed amendment to the book building method that will include maximum P/E ratio for a company to go public, officials said.

On the other hand, the experts said amendment is a must to increase the share supply in a balanced way so that both the entrepreneurs and investors feel comfort to participate in the market.

The stakeholders’ decision came Saturday at a joint meeting attended by both the bourses, Bangladesh Merchant Bankers’ Association (BMBA) and Bangladesh Association of Publicly Listed Companies (BAPLC).

Their opinion comes after the Securities and Exchange Commission (SEC) placed a recommendation regarding the amendment on book building method at a meeting held March 21 last with the stakeholders.

The stakeholders sought time up to March 27, to give their opinion regarding the recommendation of the SEC and the next meeting is scheduled to be held today (Monday).

The SEC fixes the maximum allowable price-earning (P/E) ratio at 15, the average P/E ratio of preceding three years, for a company willing to go public under the book building method.

With other proposals, the SEC included a suggestion of a review committee to justify and scrutinise the audited balance sheets of the intending companies to go public.

The stakeholders said at the moment they feel no necessity of amending the book building method and favoured to identify the misuses of the method.

At the same time, the stakeholders want to wait until the probe body on recent stock market publishes its report.

Ahasanul Islam, senior vice president of DSE, said they are not in favour of changing the laws of book building method.

“This method is widely practiced all over the world. We can only bring amendment to the method by identifying its misuses,” Mr. Islam told the FE.

“On the other hand, we should await the findings of probe body that will express their opinion on the book building method,” he added.

Professor Salahuddin Ahmed Khan, the former chief executive officer of DhakaStock Exchange (DSE), said “The regulator should bring significant amendment to book building method.”

Source: The financial express, 28 March, 2011

চার ইস্যু নিয়ে চাপের মুখে এসইসি

মার্জিন লোনের নীতিমালা, বুকবিল্ডিং পদ্ধতি, মবিল যমুনা ও এমআই সিমেন্টের তালিকাভুক্তি নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারছে না সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি)। তাই এই চার ইস্যু নিয়ে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি এখন নানা চাপের মুখে।

ঢাকা ও চট্রগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ, মার্চেন্ট ব্যাংক অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ) ও পাবলিক লিস্টেড কোম্পানিজ অ্যাসোসিয়েশনের (বিএপিএলসি) উল্লিখিত বিষয়ে দ্বিমত রয়েছে। তাই এসইসি বিষয়টি নিয়ে দোটানায় রয়েছে এসইসি।

জানা যায়, মার্জিন লোন পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত বাজারকে প্রভাবিত করে। মার্জিন লোন নিয়ে ঘন ঘন সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের কারণে একাধিকবার তোপের মুখে পড়েছে এসইসি। ফলে মার্জিন লোনের বিষয়টি এড়াতে এসইসি বিএমবিএ ও দুই স্টক এক্সচেঞ্জকে নীতিমালা তৈরীর নির্দেশ দেয়।

বিএমবিএ একটি খসড়া নীতিমালা তৈরি করলেও স্টক এক্সচেঞ্জ মার্জিন লোনের নীতিমালা তৈরির ব্যাপারে আগ্রহ দেখাচ্ছে না। বরাবরই মার্জিন লোনের সিদ্ধান্ত বাজারের জন্য সংবেদনশীল তথ্য হিসেবে কাজ করে। তাই মার্জিন লোনের সিদ্ধান্তের ভার কোনো প্রতিষ্ঠানই নিচ্ছে না।

বিএমবিএ ১:২ বহাল রেখে খসড়া প্রস্তাবনা তৈরি করেছে। এসইসিও এ প্রস্তাবনাকে চুড়ান্ত করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিন্তু স্টক এক্সচেঞ্জের অনিহার কারণে বিএমবিএ চুড়ান্ত প্রস্তাবনা এসইসিতে জমা দিচ্ছে না। ফলে প্রায় দুই মাস পার হলেও এ ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত হচ্ছে না।

মার্জিন লোনের ব্যাপারে স্টক এক্সচেঞ্জ ও বিএমবিএর অনাগ্রহের কথা জানতে চাইলে তা এড়িয়ে গিয়ে বিএমবিএর সভাপতি শেখ মর্তুজা আহমেদ বাংলানিউজকে বলেন, বিএমবিএ একটি প্রস্তাবনা জমা দিয়েছিল। পরে এসইসির নির্দেশে সেখানে নতুন কিছু সংযোযন বিয়োজন করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে আমরা একটি কমিটি করেছি।

জনতা ইনভেস্টমেন্টর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো: জাহাঙ্গীর মিয়াকে প্রধান করে এ কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি এ বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে।

বুকবিল্ডিং পদ্ধতির সংশোধন করে এসইসি একটি প্রস্তাবনা তৈরি করেছে। এ প্রস্তাবনাটি দুই স্টক এক্সচেঞ্জ, বিএপিএলসি ও বিএমবিএ এ চার প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে এসইসি গত ২১ মার্চ একটি বৈঠক করে। বৈঠকে বিএপিএলসির সভাপতি সালমান এফ রহমানসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর অনেকেই দ্বিমত পোষণ করে। ফলে পুনরায় পর্যালোচনার প্রস্তাবনাটি সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোকে দেয়া হয়েছে।

গত ২৬ মার্চ এ চার প্রতিষ্ঠান বুকবিল্ডিং পদ্ধতির সংশোধন নিয়ে বৈঠকে বসে। বৈঠকে তদন্ত কমিটির রিপোর্ট প্রকাশ না হওয়া পর্যন্ত বুকবিল্ডিং পদ্ধতি সংশোধন স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে সিএসইর প্রেসিডেন্ট ফখরুদ্দীন আলী আহমেদ বলেন, তদন্ত কমিটির রিপোর্টে বুকবিল্ডিং পদ্ধতি নিয়ে কোনো ত্রুটি চিহ্নিত করা হতে পারে কিংবা কোনো  পরামর্শ বা সুপারিশ থাকতে পারে। সেক্ষেত্রে সকল ত্রুটি, পরামর্শ ও সুপারিশ নিয়ে সংশোধনে আসতে হবে। এজন্য আপাতত এ পদ্ধতির সংস্কার স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এদিকে এ প্রতিষ্ঠানগুলোর মতামত না পাওয়ায় এসইসিও বুকবিল্ডিং পদ্ধতির সংশোধন নিয়ে চুড়ান্ত প্রস্তাবনা অর্থমন্ত্রণালয়ে পাঠাতে পারছে না।

মবিল যমুনা ও এমআই সিমেন্টের তালিকাভুক্তি নিয়ে মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে এসইসি। কোম্পানিদুটিকে তালিকাভুক্তির জন্য এসইসি নির্দেশনা দিলেও দুই স্টক এক্সচেঞ্জ বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে।

এসইসি থেকে তালিকাভুক্তির জন্য যে শর্ত দেওয়া হয়েছে স্টক এক্সচেঞ্জ সে শর্তগুলোকে তালিকাভুক্তির আইন পরিপন্থী মনে করছে। এজন্য এসইসি দুই সপ্তাহ সময় বাড়িয়েছে। তবে এ সময়েও স্টক এক্সচেঞ্জ তালিকাভুক্ত করবে না বলে জানা গেছে। ফলে এসইসি থেকে তালিকাভুক্তির বিষয়টি হাইকোর্টে পাঠানো হতে পারে।

এ ব্যাপারে ডিএসইর পরিচালক মোস্তাক আহমেদ সাদেক বলেন, যেহেতু কোম্পানিটি বাইব্যাক থেকে সরে এসে ক্ষতিপূরনের শর্ত দিচ্ছে। সেহেতু ডিএসই এ শর্তে কোম্পানিকে তালিকাভুক্ত করবে না। কোম্পানিটির স্পন্সররা যদি বাইব্যাকের শর্তে রাজি হয় তাহলে তালিকাভুক্তির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

Source: banglanews24.com, 28 March, 2011

আপাতত বুক বিল্ডিং পদ্ধতির পক্ষে নয় ডিএসই ও সিএসই

প্রাথমিক শেয়ারের মূল্য নির্ধারণের বুক বিল্ডিং পদ্ধতি এখনই আবার সচল করার পক্ষে নয় দেশের দুই স্টক এক্সচেঞ্জ, বাংলাদেশ পাবলিকলি লিস্টেড কোম্পানিজ অ্যাসোসিয়েশন (বিএপিএলসি) এবং বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ)।
সংগঠনগুলো চাইছে শেয়ারবাজারবিষয়ক তদন্ত কমিটি বুক বিল্ডিং পদ্ধতি নিয়ে কী ধরনের সুপারিশ দেয়, সেটি দেখেই এ ব্যাপারে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নিতে। এ জন্য তারা বুক বিল্ডিং পদ্ধতির সংশোধনীর খসড়া প্রস্তাবের ওপরও আপাতত আর কোনো মতামত না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
রাজধানীর গুলশান ক্লাবে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে গতকাল শনিবার উল্লিখিত চারটি প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা এ ব্যাপারে মতৈক্যে পৌঁছেছেন বলে জানা গেছে।
বৈঠকে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই), চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই), বিএপিএলসি ও বিএমবিএর নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
যোগাযোগ করা হলে সিএসইর সভাপতি ফখরউদ্দীন আলী আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘বুক বিল্ডিং সংশোধনী নিয়ে বাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) খসড়া প্রস্তাবের ওপর কাল সোমবার বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। ওই বৈঠকে বাজারের স্বার্থে আমরা যাতে সম্মিলিতভাবে ঐক্যবদ্ধ মতামত দিতে পারি, সে জন্যই নিজেদের মধ্যে একটি অনানুষ্ঠানিক বৈঠক করেছি।’
বৈঠকের আলোচ্যসূচি সম্পর্কে সিএসইর সভাপতি বলেন, ‘বুক বিল্ডিং পদ্ধতি নানা কারণে ঠিকভাবে কাজ করেনি। ফলে পদ্ধতিটি বিভিন্ন মহলে সমালোচিত হয়েছে। সমালোচনার মুখে সরকারের পক্ষ থেকে পদ্ধতিটি স্থগিত করা হয়েছে। তাই আমরা মনে করছি, এ ব্যাপারে তদন্ত কমিটির মতামত পর্যালোচনা করেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত হবে।’
সিএসইর সভাপতি আরও বলেন, যত দিন পর্যন্ত বুক বিল্ডিং পুনরায় চালু না হবে, তত দিন পর্যন্ত কোনো কোম্পানি প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে বাজার থেকে মূলধন সংগ্রহ করতে চাইলে স্থিরমূল্য পদ্ধতিতে তা করতে হবে। বাজারে যাতে শেয়ারের ঘাটতি তৈরি না হয়, সে জন্য এ পদ্ধতিতে কোম্পানিগুলোকে বাজারে নিয়ে আসতে হবে।
বর্তমানে বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে ৪৮টির মতো কোম্পানি বাজারে আসার অপেক্ষায় রয়েছে। মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর পক্ষ থেকে বৈঠকে জানানো হয়েছে, এর মধ্যে ১২ থেকে ১৩টি কোম্পানি স্থিরমূল্য পদ্ধতিতে বাজারে আসতে রাজি আছে।
ফখরউদ্দীন আলী আহমেদ এসব কোম্পানিকে দ্রুত বাজারে আনার ব্যাপারে তাগিদ দেন।

Source: The daily prothom-alo, 27 March, 2011