আইপিওতে আসছে ১৪ বীমা কোম্পানি

সব জটিলতা কাটিয়ে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হচ্ছে জীবন বীমা ও সাধারণ বীমা’র ১৪টি কোম্পানি। এরই মধ্যে এ কোম্পানিগুলো তাদের প্রসপেক্টর এবং ইস্যু ম্যানেজার নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এছাড়া সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) কাছে এ কোম্পানিগুলো শেয়ার বাজারে ছাড়ার ক্ষেত্রে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) জন্য আবেদন করবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে। যে কোম্পানিগুলো আইপিওতে আসছে: জীবন বীমা কোম্পানিগুলোর মধ্যে- হোমল্যান্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স, সানফ্লাওয়ার লাইফ ইন্স্যুরেন্স, পদ্মা ইসলামিক লাইফ ইন্স্যুরেন্স, সান লাইফ ইন্স্যুরেন্স, বায়রা লাইফ ইন্স্যুরেন্স এবং গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্স। অন্যদিকে সাধারণ বীমা কোম্পানির মধ্যে রয়েছে- সাউথ এশিয়ান ইন্স্যুরেন্স,  ইউনিয়ন ইন্স্যুরেন্স, মেঘনা ইন্স্যুরেন্স, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স, এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স, ক্রিস্টাল ইন্স্যুরেন্স এবং দেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স। জানা যায়, বীমা আইন অনুযায়ী লাইসেন্স পাওয়ার তিন বছরের মধ্যে কোম্পানিগুলোকে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হতে হবে। কিন্তু এসব ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ৩০ কোটি টাকা না হওয়ায় তারা শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হতে পারছে না। এ কারণে এ কোম্পানিগুলোকে প্রতিদিন ১ হাজার টাকা করে জরিমানা গুনতে হচ্ছে। এ জরিমানা থেকে রক্ষার জন্য ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিগুলোর পক্ষ থেকে এসইসি’র নিয়ম শিথিল করার জন্য আবেদনও করা হয়েছে। সূত্র মতে, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির জন্য কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন কমপক্ষে ৪০ কোটি টাকা হওয়া বাধ্যতামূলক হওয়ার কারণে বীমা কোম্পানির তালিকাভুক্তি নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়।

নতুন বীমা আইনে জীবনবীমা কোম্পানির ন্যূনতম পরিশোধিত মূলধন ৩০ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। ফলে বীমা আইনের শর্ত পূরণ করলেও পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির যোগ্যতা অর্জন করতে পারবে না। এ জটিলতা এড়াতে বীমা কোম্পানির পরিশোধিত মূলধনের শর্ত শিথিল করার প্রস্তাব দিয়ে জুলাই মাসে প্রথম দিকে অর্থ মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেয় এসইসি। জানা গেছে, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির জন্য আবেদনকারী বীমা কোম্পানিগুলোর কোনটির বর্তমান পরিশোধিত মূলধনই ১০ কোটি টাকার বেশি নয়। বীমা আইনে সাধারণ বীমা কোম্পানিগুলোর উদ্যোক্তাদের পরিশোধিত মূলধন ২৪ কোটি টাকা এবং জীবন বীমা কোম্পানির ক্ষেত্রে ১৮ কোটি নির্ধারণ করে দেয়া আছে। কোম্পানিগুলো উদ্যোক্তা অংশের মূলধনের এ শর্ত পূরণ করে এসইসিকে অবহিত করলে তাদের আইপিও অনুমোদনের বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

এসইসি সূত্রে জানা গেছে, সানফ্লাওয়ার লাইফ ইন্স্যুরেন্স পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির জন্য গত বছরের ২৬শে জানুয়ারি এসইসিতে আবেদন করে। কোম্পানিটি আইপিও’র মাধ্যমে ৪ লাখ ৫০ হাজার শেয়ার ছেড়ে ৯ কোটি টাকা সংগ্রহ করার প্রস্তাব দিয়েছে। কোম্পানির ১০০ টাকা অভিহিত মূল্যের প্রতিটি শেয়ারের বিপরীতে ১০০ টাকা প্রিমিয়াম চাওয়া হয়েছে। মেঘনা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি আইপিও’র মাধ্যমে ১০০ টাকা অভিহিত মূল্যর ৯ লাখ শেয়ার ছেড়ে ৯ কোটি টাকা সংগ্রহের জন্য এসইসিতে আবেদন করেছে। কোম্পানিটি গত বছরের ২৮শে এপ্রিল এসইসিতে আবেদন জমা দেয়। একই দিন আবেদন জমা দিয়েছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডও। কোম্পানিটি আইপিও’র মাধ্যমে ৯ লাখ শেয়ার ছেড়ে বাজার থেকে সাড়ে ১৩ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চায়। কোম্পানির ১০০ টাকা অভিহিত মূল্যের প্রতিটি শেয়ারের বিপরীতে ৫০ টাকা প্রিমিয়াম চাওয়া হয়েছে। অন্যদিকে দেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির আইপিওর পরিমাণ ৯ কোটি টাকা। মোট শেয়ারের সংখ্যা ৯ লাখ। প্রতিটি শেয়ারের অভিহিত মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১০০ টাকা। কোম্পানিটি গত বছরের ২৯শে এপ্রিল এসইসিতে আবেদন জমা দিয়েছে। পদ্মা লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের আইপিও’র মাধ্যমে ১১ কোটি ২৫ হাজার টাকা সংগ্রহের জন্য এসইসিতে আবেদন করেছে। এ কোম্পানির মোট শেয়ারের সংখ্যা ৪ লাখ ৫০ হাজার। প্রতিটি শেয়ারের অভিহিত মূল্য ১০০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি ১৪৫ টাকা প্রিমিয়াম চাওয়া হয়েছে। এ কোম্পানিও গত বছরের ২৯শে এপ্রিল আবেদন করেছে। ইউনিয়ন ইন্স্যুরেন্স পুঁজিবাজার থেকে ৯ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চায়। ইউনিয়ন ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন রয়েছে ৬ কোটি টাকা।

আগের বীমা আইন অনুযায়ী পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি হিসেবে আত্মপ্রকাশের ৩ বছরের মধ্যে পুঁজিবাজারে শেয়ার ছেড়ে সাধারণ বীমা কোম্পানিগুলোর পরিশোধিত মূলধন ৬ কোটি থেকে ১৫ কোটি টাকায় এবং জীবন বীমা কোম্পানিগুলোর পরিশোধিত মূলধন ৩ কোটি থেকে ৯ কোটি টাকায় উন্নীত করা বাধ্যতামূলক। তবে নতুন বীমা আইনে পরিশোধিত মূলধনের বাধ্যবাধকতা বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রতিটি কোম্পানিকেই উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে মূলধন সংগ্রহের পাশাপাশি আইপিও’র পরিমাণও বাড়াতে হবে।

Source: Manobzamin

This entry was posted in News on by .

About bdipo Team

Started our journey in Jan 2009. A simple idea is getting bigger. A baby born and learning to walk, talk, imitate and express. This page is dedicated to that eternal urge of expression. The humane and emotional side of bdipo.